Saturday, 19 August, 2017 | ৪ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সংবাদ শিরোনাম
বিশ্বনাথে বিদুৎস্পৃষ্টে শিশু নিহত  » «   বঙ্গবন্ধুর লাশ দাফনের বর্ণনা দিলেন টুঙ্গিপাড়ার ওসি জলিল শেখ  » «   ভারতে কেন কখনই সেনা অভ্যুত্থান হয়নি?  » «   স্পেনে জনতার ওপর ভ্যান চালিয়ে সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ১৩, আহত ৮০  » «   আয়শা খাতুন এবার সিলেট জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষিকা  » «   অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন শাবির নতুন ভিসি  » «   বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বেড়ে ৪৮ লাখ, মৃত ৬১  » «   শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে জেলা ছাত্রলীগের আলোচনা সভা  » «   সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ৪৯৩ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা  » «   বঙ্গবন্ধু মরে নাই…  » «   যুক্তরাষ্ট্রে দুই বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু  » «   এবার ব্যবসায়ীকে পেটালো ছাত্রলীগ  » «   আবারো পিছিয়েছে কিবরিয়া হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ  » «   পর্তুগালে সড়কদুর্ঘটনায় মৌলভীবাজারের যুবক নিহত  » «   সিলেট-তামাবিল-জাফলং মহাসড়ক বেহাল দশা  » «  
Advertisement
Advertisement

পানির নিচে ঢাকা শহর

দৈনিকসিলেটডেস্ক:বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে ২৪ ঘণ্টা ধরে অনবরত ঝরছে বৃষ্টি। রবিবার রাতে শুরু হওয়া এই বৃষ্টি সোমবার রাতেও থামেনি। ভারী ও মাঝারি ধরনের এই বৃষ্টিতে বরাবরের মতোই পানিতে তলিয়ে গেছে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা। বৃষ্টিতে কোনো কোনো রাস্তায় হাঁটুর উপরে পানি জমেছে। এতে ব্যাহত হচ্ছে যানচলাচল। চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রাজধানীবাসীকে।

দেশজুড়ে অব্যাহত এই বর্ষণ আগামীকাল মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত স্থায়ী থাকার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। ফলে রাজধানীর জলাবদ্ধতার পরিমাণ আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এখনো বর্ষাকাল শুরু হয়নি। এর আগেই ‍বৃষ্টির পরিমাণ ও জলাবদ্ধতায় শঙ্কিত নগরবিদরা। তাদের ধারণা, এবার বর্ষাকালে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ আরও বাড়তে পারে। এতে দুর্ভোগও বাড়বে।

সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে দেখা গেছে, অব্যাহত বৃষ্টি আর জলাবদ্ধতার কারণে মানুষের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। নিচু এলাকাগুলোর বসতবাড়ি, দোকানপাট এরই মধ্যে পানির নিচে তলিয়ে গেছে। সড়কে হাঁটু সমান পানি মাড়িয়েই সাধারণ মানুষকে চলাচল করতে হচ্ছে। একই সঙ্গে ড্রেন থেকে নির্গত নোংরা পানি ও রাস্তার পাশে রাখা আবর্জনাও পানিতে ভেসে বেড়াচ্ছে। ভোগান্তি সত্ত্বেও নগরবাসীকে নিরুপায় হয়ে নানা প্রয়োজনে রাস্তায় নামতে হচ্ছে।  ]

সরেজমিনে দেখা যায়, রাধানীর খিলক্ষেতের অধিকাংশ সড়ক, পাশের দোকান, ভবন ও মসজিদের নিচতলা পানির নিচে তলিয়ে গেছে। খিলক্ষেতের বাসিন্দা আকবর আলী ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমাগো এলাকার নিচতলা বলতে যা বুঝেন সবই পানির নিচে। আমার দোকানেও পানি ঢুকসে, মাল সামান যেমনে নষ্ট হইসে, এক কথায় ব্যবসায় লস। এহন চিন্তায় আসি এই পানি কহন নামব।’

নিকুঞ্জের বাসিন্দা আকবর হোসেন  জানান, এই এলাকায় তিনি এর আগে কখনো এমন জলাবদ্ধতা দেখেননি। তার ধারণা, ২৪ ঘণ্টার বৃষ্টিপাত সাম্প্রতিকালের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।

মহাখালী থেকে বনানী ফ্লাইওভার পর্যন্ত রাস্তা ডুবে আছে পানিতে। এখানে গাড়ি চলছে থেমে থেমে। এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে তীব্র যানজটের। ঈদের কেনাকাটায় বের হয়ে অনেককে জলাবদ্ধতা আর যানজটের ভোগান্তিতে পড়ে নাকাল হতে দেখা গেছে।

মালিবাগ, মৌচাক সংলগ্ন এলাকাগুলোর গলিপথ ও ফুটপাতের অনেক অংশই পানির নিচে। ৫০ মিটার রাস্তা পার করতে রিকশা-ভ্যানের চালকেরা নিচ্ছে ১৫ টাকা। রিকশাচালকেরা কয়েক গুণ বেশি ভাড়া আদায় করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আফতাব পুরানা পল্টন থেকে রমনা থানায় নিয়মিত যাতায়াত করেন ৫০ টাকা ভাড়ায়। আজ রিকশাচালকেরা তার কাছে চাচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা। তবে কয়েকজন রিকশাচালকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অব্যাহত বৃষ্টি, প্রচণ্ড বাতাস আর জলাবদ্ধতার কারণে তাদের রিকশা চালাতে কষ্ট হচ্ছে। এজন্য ভাড়া একটু বেশি নিচ্ছেন।

এদিকে রাজধানীজুড়ে খোঁড়াখুঁড়ির কাজ শেষ না হওয়ায় দুর্ভোগের মাত্রা বেড়েছে বলে মনে করছেন ভুক্তভোগীরা। বিশেষ করে মিরপুর, মৌচাক-মালিবাগ ও শান্তিনগর এলাকার বাসিন্দাদের খোঁড়াখুঁড়ির দুর্ভোগে বেশি পড়তে দেখা গেছে।

খিলক্ষেত, শ্যামলী, আদারব, মিরপুর-কাজিপাড়-শেওড়াপাড়া, মোহাম্মদপুর, শান্তিনগর, মগবাজার, যাত্রাবাড়ী, শনিরআখড়া, পোস্তগোলাসহ রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোর পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার ভালো না হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতেই জলবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। টানা বর্ষণ হলেই এলাকার মূল সড়ক ও অলিগলির পথগুলো ডুবে যায়। পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা ভালো না থাকায় এই পানি নামতে সময় নেয় ঘণ্টার পর ঘণ্টা। ফলে সড়কের পানি না কমা পর্যন্ত নোংরা পানিতেই চলাচল করতে বাধ্য হয় সাধারণ মানুষ।

কাজিপাড়ার বাসিন্দা রেজা মাহমুদ  বলেন, ‘আজকে আমাদের বাসায় মেহমান আসার কথা ছিল। কিন্তু এই বৃষ্টির কারণে আমাদের এলাকার রাস্তায় হাঁটু সমান পানিতে তলানো। আমার বাসার ভেতরও পানি ঢুকে গেছে। বাসার মালামাল বাঁচাতেরই এখন আমরা দৌড়াদৌড়িতে আছি। কী আর করার, সম্মান বাঁচানোর জন্য মেহমানকে বাসায় আসতে নিষেধ করেছি।’

আবহাওয়াবিদ আফতাব উদ্দিন বলেন, ‘বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপের কারণে সারাদেশেই টানা বৃষ্টি হচ্ছে। ঢাকায় এই ভারী বর্ষণ আরও একদিন থাকবে। আজকে সন্ধ্যার পর কখনো হালকা, মাঝারি অথবা ভারী বর্ষণ হিসেবে আগামীকাল রাত পর্যন্ত টানা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে ঢাকার বাইরে দক্ষিণাঞ্চলে আরও তিন দিন ভারী বৃষ্টি থাকবে।’

আজকে ভোর ছয়টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত ঢাকায় ৭২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানান এই আবহাওয়াবিদ।-ঢাকাটাইমস

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

উপদেষ্টা: ড.এ কে আব্দুল মোমেন
সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: