Friday, 21 September, 2018 | ৬ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
Advertisement

২৪ বছর আগে অদৃশ্য হওয়া ইসলামে ধর্মান্তরিত বোনকে এখনো খুঁজছেন মার্কিন নারী

নিউইয়র্ক: ২৪ বছর পর মার্গারেট লামান্না দীর্ঘ দিন ধরে অদৃশ্য থাকা তার বোনকে একটি সহজ বার্তা দিতে চান আর সেটি হচ্ছে ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’।

মার্গারেট লামান্না বলেন, ‘আমি তাকে বলতে চাই, ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি।’

দুই দশকেরও বেশি আগে ওশান সিটির ওয়েসলি এভিনিউতে রেনি লামান্না তার বোন মার্গারেট লামান্নার বাসা থেকে হঠাৎ করেই অদৃশ্য হয়ে যান। দিনটি ছিল ১৯৯৪ সালের ৮ জানুয়ারি। বাসা থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় তার শরীরে ছিল সাদা রঙের একটি সোয়েটারের ওপর জড়ানো নীল রঙের একটি গাউন, লাল রঙের সিল্কের পাজামা, সাদা মোজা এবং এক জোড়া সেন্ডেল।

অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার ঠিক আগের দিন রেনি নিউইয়র্কে ছিলেন বলে বোন মার্গারেট লামান্না জানান।

তিনি জানান, ওই সময় রেনি স্নায়বিক সমস্যায় ভুগছিল এবং তার প্রেমিক তাদের ১০ বছরের সম্পর্ক শেষ করার সিদ্ধান্ত নিলে রেনি তা স্বাভাবিকভাবে মেনে নেননি এবং এই অবস্থায় তাকে কুইন্সের রাস্তায় ভবঘুরের মতো ঘুরতে দেখা গেছে। একজন ভাল মানুষ তাকে রাস্তায় দেখতে পেয়ে অ্যাম্বুলেন্স ডাকেন।

মার্গারেট বলেন, তার বোনকে কুইন্স হাসপাতালের মনোরোগ বিভাগের জরুরি কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু সে সেখানে ভর্তি হয়নি এবং তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছিল।

তিনি জানান, ওই সময় তিনি নিউইয়র্কে তার একজন বন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগ করে রেনিকে হাসপাতাল থেকে তুলে নিয়ে তার ম্যানহাটনের বাসায় নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। তারপর তিনি তার বোনকে তার ওশান সিটির বাসায় নিয়ে আসার জন্য একটি গাড়ি ভাড়া করে ম্যানহাটনে যান।

মার্গারেট লামান্না বলেন, ‘ওসান সিটির ওয়েসলি এভিনিউয়ে অবস্থিত আমার বাসায় পৌঁছানোর ৪০ মিনিট পর ঠিক সন্ধ্যে ৭টা ১ মিনিটের সময় বাসার দরজা খুলে সে বেরিয়ে যায় এবং সৈকতের ঘন অন্ধকারের মধ্যে মিলিয়ে যায়।’

নিখোঁজের এই ঘটনার পর পুলিশ তিনবার তদন্ত করেছে। ১৯৯৪ সালে দুইবার এবং ১৯৯৫ সালে আরেকটি তদন্ত করা হয়। কিন্তু রেনিকে এখনো পাওয়া যায় নি।

গত সোমবার রেনির নিখোঁজ হওয়ার দিনটিতে মার্গারেট লামান্না তার বোনের গায়েব হয়ে যাওয়া এবং তার নিরন্তর অনুসন্ধানের বিষয়ে কথা বলার জন্য ‘কেপ মে কাউন্টি’র প্রসিকিউটর অফিসের গোয়েন্দা মার্শাল ক্রেডিকের সঙ্গে দেখা করেন।

রেনির বয়স এখন ৫৯ বছর হবে। তিনি প্রায় ৫ ফুট ২ ইঞ্চি লম্বা। তার গায়ের রঙ সাদা এবং তার চোখ বাদামী রঙের। ১৯৯০ এর দশকে তোলা তার ছবিগুলোতে তাকে লম্বা কালো চুলের অধিকারী একজন নারী হিসেবে দেখা যায়।

৩৪ বছর আগের রেনি (বামে) এবং বর্তমানে ৫৯ বছর বয়সে রেনিকে এমন দেখাতে পারে (ডানে)

মার্গারেট জানান, তিনি বিশ্বাস করেন যে তার বোন হয়ত বিষণ্নতায় ভুগতে পারেন এবং এই বিষন্নতার কারণে তার মধ্যে মানসিক বৈকল্য দেখা দিতে পারে। তিনি আরো বিশ্বাস করেন যে তার বোন হয়তো তার প্রকৃত নাম স্মরণ করতে পারছে না অথবা তার স্মৃতিলোপ পেয়ে থাকতে পারে।

তিনি বলেন, তার বোন পাঁচটি ভাষায় কথা বলতে পারে এবং মধ্যপ্রাচ্যের সংস্কৃতির প্রতি তার প্রবল আগ্রহ রয়েছে। সে ক্যাথলিক খ্রিস্টান থেকে ইসলামে ধর্মান্তরিত হন এবং হিজাব বা বোরকা পরতে পারেন।

বিষয়টি দেখভালের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে কেপ মে কাউন্টির নিউ জার্সি স্টেট পুলিশের ডিটেকটিভ ক্রেডিকের ওপর। তিনি ২০১৩ সাল থেকে রেনি লামান্না সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করছেন।

তিনি বলেন, ‘এটা আমাদের জন্য একটি সক্রিয় মামলা। আমরা আশাবাদী যে সে এখানেই আছে এবং তাকে খুঁজে পাওয়া যাবে।’

ইন্টারনেট ও সোশ্যাল মিডিয়ার আবির্ভাব এবং পুলিশ প্রযুক্তির অগ্রগতির কারণে মার্গারেট লামান্না এবং ক্রেডিক উভয়েই আশাবাদী যে ২৪ বছর পরও রেনিকে খুঁজে পাওয়া যাবে।

মার্গারেট বলেন, ‘আজকের দেন সবাই সেলফোন বহন করেন। যদি কেউ রেনিকে দেখেন, তাহলে দয়া করে তার ছবি তোলে আমার ১-৮৮৮ এই নাম্বারে পাঠিয়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ করছি।’

কেপ মে কাউন্টির প্রসিকিউর জেফরি সুথারল্যান্ডের মতে, রেনির অনুসন্ধানের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া একটি ভাল উপায়। তার অফিস মার্গারেটের বোনের খোঁজে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে তিনি জানান।

জেফরি সুথারল্যান্ড বলেন, ‘রেনি লামান্নার অন্তর্ধানের ২৪তম বার্ষিকীতে মার্গারেট লামান্নার সঙ্গে বৈঠক করে আমরা আনন্দিত। তিনি স্পষ্টভাবে তার বোন রেনিকে ভালবাসেন এবং আমরা তার খোঁজ পাওয়ার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

মামলাটি এখনো সক্রিয় রয়েছে বলে তিনি জানান।

এই প্রসিকিউটর বলেন, ‘রেনির বিষয়ে যে কোনও তথ্য উপস্থাপন করার জন্য জনসাধারণের কাছে আমরা আহ্বান জানাচ্ছি এবং একই সঙ্গে তা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেও শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি।’

জেফরি সুথারল্যান্ড জানান, ইন্টারনেট ও বিস্তৃত সামাজিক নেটওয়ার্ক- যেমন ফেসবুক ও টুইটার সহ আজকের দিনে প্রযুক্তি অনেক বেশি উন্নত। ১৯৯৪ সালে পুলিশের এই সুবিধা ছিল না।

সর্বশেষ সংবাদ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: