Friday, 20 July, 2018 | ৫ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

Advertisement

খাদিম নগরে শকুন সংরক্ষণে সচেতনতামূলক সভা

দৈনিকসিলেটডটকম:খাদিম নগর জাতীয় উদ্যানে উদ্যোগে শকুন সংরক্ষণ বিষয়ক সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় শুরু হওয়া সভায় বক্তারা বলেন,
এক সময় বাংলাদেশে ৭ প্রজাতির শকুন এর দেখা পাওয়া যেত। তার মধ্যে বাংলা শকুন ও সরুঠুটি শকুন আবাসিক শকুন হিসাবে পরিচিত। বাংলা শকুন সারাদেশে বিস্তৃত ছিল। আইইউসিএন এটিকে মহাবিপন্ন পাখির তালিকায় স্থান দিয়েছে। শকুন বিলুপ্তির জন্য পশু চিকিৎসায় ডায়ক্লোফেনাক ও কিটোপ্রোফেন জাতীয় ঔষধের ব্যবহার ও আবাসস্থল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়াকে দায়ী করা হয়। আজ এই মহাবিপন্ন শকুন সংরক্ষণে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত হলো সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলার গুলনী বস্তী গ্রামে।

ইউএসএইড’র ক্রেল প্রকল্পের আওতায় সিএনআরএস আয়োজিত সহ-ব্যবস্থাপনা নির্বাহী কমিটি, সভায় উপস্থিত ছিলেন ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো: আমিনুর রহমান চৌধুরী, সহ-ব্যবস্থাপনা নির্বাহী কমিটি, খাদিমনগর জাতীয় উদ্যান এর সভাপতি মুর্শেদ আহমেদ চৌধুরী, সিলেট রেঞ্জ, সিলেট বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা দেলোয়ার রহমান, প্রাণী সম্পদ দপ্তরের কর্মকর্তা রতন চন্দ্র, রাতারগুল সহ-ব্যবস্থাপনা সাধারণ কমিটির সদস্য মো: আব্দুল করিম শিকদার, স্থানীয় ইউপি সদস্য মো: আব্দুল গউছ, গুলনী চা বাগানের ব্যবস্থাপক মো: আছাদুজ্জামান, চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির প্রতিনিধি, গুলনী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র/ছাত্রী ও গ্রামবাসীগণ ও গণমাধ্যম কর্মী শেখ নাছির।
ক্রেল প্রকল্প প্রতিনিধি এস এম মামুন এর সঞ্চালনায় সচেতনতামূলক সভায় শকুন বিলুপ্তির কারণ, সংরক্ষণে সচেতনতা, আবাসস্থল রক্ষা ও পশু চিকিৎসায় ক্ষতিকারক ডায়ক্লোফেনাক ও কিটোপ্রোফেন জাতীয় ঔষধের ব্যবহার সম্পূর্ণ বন্ধে উপস্থিত গ্রামবাসীগণ প্রতিশ্রুতিবন্ধ হন।

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: