Wednesday, 12 December, 2018 | ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
Advertisement

রিয়ালের সঙ্গে এই সম্পর্কটাও চুকে ফেললেন রোনালদো!

দৈনিকসিলেটডেস্ক:  পেশাদারি জগতটা এমনই। স্বার্থ আছে তো ভালোবাসা অটুট। স্বার্থ ফুরিয়ে গেলে সম্পর্কের বন্ধনটাও ছিঁড়ে যায় দ্রুত। তাই বলে এতো তাড়াতাড়ি! ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে জুভেন্টাসে নাম লিখিয়েছেন এক মাসও হয়নি। এরই মধ্যে রিয়ালের সঙ্গে ভালোবাসার এই বন্ধনটাও ছিঁড়ে ফেললেন রোনালদো। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে ‘আনফলো’ করলেন রিয়ালকে! মানে ইনস্টাগ্রামে তিনি আর রিয়ালকে অনুসরণ করবেন না। রিয়ালকে ‘আনফলো’ করে ‘ফলোয়ার’ হয়েছেন নতুন ক্লাব জুভেন্টাসের।

জুভেন্টাস এখন তার ঠিকানা। নিজের ক্লাব। তিনি জুভেন্টাসের ‘ফলোয়ার’ হবেন, এটা স্বাভাবিকই। তাই বলে রিয়ালকে ‘আনফলো’ করার তো দরকার ছিল না। এমন তো নয় যে, জুভেন্টাসের ‘ফলোয়ার’ হলে তিনি রিয়ালের ‘ ফলোয়ার’ থাকতে পারতেন না। চাইলে রিয়ালেরও ‘ফরোয়ার’ থাকতে পারতেন তিনি।

কিন্তু সেটা না করে রিয়ালকে ‘আনফলো’ করায় বেশ শোরগোলই পড়ে গেছে। বিশেষ করে স্পেনের গণমাধ্যম রোনালদোর এই কর্মে অন্য গন্ধই খুঁজছে। গণমাধ্যমের কথা কি বলবেন। রিয়ালের উদ্দেশ্যে লেখা রোনালদোর সেই বিদায়ী চিঠিই তো তার বিরুদ্ধে কথা বলছে!

জুভেন্টাসের সঙ্গে কথা-বার্তা পাকা করার পরই বিদায়ী রিয়ালের উদ্দেশ্যে আবেগঘন এক চিঠি লিখেছিলেন রোনালদো। ‘রিয়াল মাদ্রিদ আমার হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে । আমি এই জার্সিটা ছেড়ে যাচ্ছি। কিন্তু সেখানেই থাকি, এই ক্লাব এবং বার্নাব্যুকে আমি ভুলব না। রিয়াল আমার জীবনের বড় একটা অংশ।’-এমন আবেগী কথা-বার্তাই লিখেছিলেন তিনি। চিঠিতে ফুটিয়ে তুলেছিলেন রিয়ালের প্রতি আত্মার সম্পর্কের বন্ধনের কথা। ফুটে উঠেছিল অগাধ ভালোবাসা।

কিন্তু মাস না পেরোতেই সেই আবেগি চিঠি হয়ে উঠল ঠুনকো ভালোবাসার এক স্মারকস্বাক্ষী। নিজের লেখা আবেগি চিঠিটাকে প্রশ্নবিদ্ধ করলেন তিনি নিজেই। হৃদয়ের সেই রিয়ালকে ‘আনফলো’ করে। অনুসারির তালিকা থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেও পর্তুগিজ তারকা নিজের জীবন থেকে রিয়ালকে একেবারে ‘ আনফলো’ করতে পারবেন না। রিয়ালের জার্সি গায়ে তার অর্জন, কীর্তি-ঠিকই তাকে ছায়ার মতো অনুসরণ করবে।

একটি, দুটি নয়। দীর্ঘ ৯টি বছর কাটিয়েছেন বার্নাব্যুতে। এই রিয়ালে তেকেই তিনি হয়েছেন ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা। জিতেছেন অসংখ্য শিরোপা। পেয়েছেন কাড়ি কাড়ি ব্যক্তিগত পুরস্কার। রিয়ালের হয়েই ৪ বার জিতেছেন উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ৪ বার জিতেছেন ব্যালন ডি’অর। নিজের করে নিয়েছেন রিয়ালের অসংখ্য রেকর্ড। রিয়ালের হয়ে সর্বোচ্চ গোল (৪৫১টি), লা লিগার সর্বোচ্চ গোল (৩১১), চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সর্বোচ্চ গোল (১০৫টি)-এসব রেকর্ডই তার দখলে।

রোনালদো চাইলেই কি এই প্রাপ্তি, এই রেকর্ডগুলোকে ছুঁড়ে ফেলতে পারবেন? রোনালদো নিজেও জানেন পারবেন না। বিদায়ী চিঠিতে তাই সেই চরম সত্যটাই চিত্রিত করেছিলেন। কিন্তু ইনস্টাগ্রামে রিয়ালকে ‘ আনফলো’ করে বুঝিয়ে দিলেন, অর্জন-প্রাপ্তিতে রিয়াল তার জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ বটে। ক্লাবটির প্রতি হৃদয়ের ভালোবাসা নেই! বরং আছে ক্ষোভ-হতাশা।

রিয়ালের কর্তাদের সঙ্গে তার সম্পর্কটা ভেঙে গিয়েছিল বলেই গণমাধ্যমে বারবার খবর এসেছে। সেই ক্ষোভ থেকেই হয়তো রিয়ালকে ‘আনফলো’ করলেন রোনালদো। তবে ক্লাব রিয়ালকে ‘আনফলো’ করলেও রিয়ালের খেলোয়াড়দের ‘আনফলো’ করেননি রোনালদো। সাবেক সতীর্থদের সবাইকে এখনো অনুসরণ করছেন তিনি। এমনকি রিয়ালের সাবেক দুই কোচ কার্লো আনচেলত্তি এবং জিনেদিন জিদানকেও ইনস্টাগ্রামে অনুসরণ করছেন। সম্পর্কটা ‘কাট’ করলেন কেবল ক্লাব রিয়ালের সঙ্গে।

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: