Thursday, 18 October, 2018 | ৩ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
Advertisement

পুরুষদের ডেকে এনে তারা একসাথে ‘নগ্ন’ হতেন- এরপর…

দৈনিকসিলেটডেস্ক:বিত্তবান পুরুষদের প্রথমে তারা টার্গেট করতেন। এরপর মুঠোফোনে চার নারী দিতেন প্রেমের প্রস্তাব। রাজি হলে ডেকে আনতেন বাসায়। বাড়িতে এনে ঘরের দরজা বন্ধ করে উভয়ে বিবস্ত্র হতেন। এ সময় আগে থেকে ওঁত পেতে থাকা ছেলে সহযোগীরা ঘরে প্রবেশ করে দুজনের নগ্ন ছবি তুলতেন। পরে সেই ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে আদায় করতেন মোটা অংকের টাকা।

নওগাঁর পার-নওগাঁ (দক্ষিণপাড়া) এলাকায় এমন অভিযোগে গতকাল বৃহস্পতিবার চার নারী ও চার পুরুষকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা সদর মডেল থানা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, পার-নওগাঁ দক্ষিণপাড়া এলাকার মোছা. শান্তা খাতুন (৩০), মোছা. নিপা খাতুন (৩২) ও মোছা. সন্ধ্যা খাতুন (১৯), বগুড়ার আদমদিঘী থানার কেল্লা গ্রামের মোছা. রিয়া খাতুন, সদর উপজেলার ফতেপুর গ্রামের হারুন মণ্ডল (৩৬), মো. আরিফ হোসেন (২৫), নুর ইসলাম নোবেল (২০) ও মো. আশিক (১৯)।

পুলিশের অভিযোগ, ওই আট নারী-পুরুষ বেশ কিছুদিন ধরে নওগাঁ শহরের বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে এসব কাজ করছিলেন। পুলিশ তাদের বহুদিন ধরে খুঁজছিল।

জানা যায়, নওগাঁ সদর উপজেলার মঙ্গলপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বাড়িতে ডেকে নিয়েছিলেন তারা। পরে রফিকুল কৌশলে থানায় খবর দেন। পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেনের নির্দেশনায় নওগাঁ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল হাইয়ের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ওসি মো. আবদুল হাই জানান, নওগাঁ শহরের বাঙ্গাবাড়িয় এলাকাং শিউলী ম্যানসনের চতুর্থতলায় ভাড়া থাকাকালীন মঙ্গলপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামকে এমন ফাঁদে ফেলে নগদ ৫০ হাজার টাকা আদ্য়া করে এবং ৮ লাখ টাকা দারি করে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নিয়ে ছেড়ে দিয়েছিল। সে ব্যাপারেও একটি মামলা করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের ববিরুদ্ধে নওগাঁ সদর মডেল থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের হয়েছে।

 




© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: