Thursday, 15 November, 2018 | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
Advertisement

ঘরের ছেলে বাচ্চুকে অশ্রুসিক্ত বিদায়

দৈনিকসিলেটডেস্ক:  চট্টগ্রামের ছেলে আইয়ুব বাচ্চু। সেখানেই কেটেছে শৈশব-কৈশর। এরপর ঢাকা। ঢাকা ছাপিয়ে নামডাক বিশ্বজুড়ে।

ঘরের ছেলে আইয়ুব বাচ্চুকে শনিবার কাছে পেলেন চট্টলাবাসী। কিন্তু, এমনভাবে কেউই তাদের প্রিয় রকস্টারকে চাননি। তাইতো শেষ বিকেলে কফিনে মোড়া কিংবদন্তিকে চিরবিদায় জানাতে চট্টগ্রামের জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ প্রাঙ্গনে নামে ভক্তের ঢল।

লাইনে দাঁড়িয়ে তারা প্রিয় শিল্পীকে শেষশ্রদ্ধা জানান। এ সময় সবার চোখে-মুখে স্পষ্ট ছাপ স্বজন হারানোর।

গত বৃহস্পতিবার মাত্র ৫৬ বছর বয়সে সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান আইয়ুব বাচ্চু। তিনি ছিলেন একাধারে গায়ক, গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার ও প্লেব্যাক শিল্পী। ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

শুক্রবার রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি শেষশ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর জাতীয় ঈদগাহের নামাযে জানাযাতেও ঢল নামে ভক্তদের।

সেখান থেকে মরদেহ রাখা হয় স্কয়ার হাসপাতালের হিমঘরে। কানাডা থেকে আহনাফ তাজওয়ার ও অস্ট্রেলিয়া থেকে মেয়ে ফাইরুজ সাফরা আসার পর স্ত্রী ফেরদৌস আকতার স্বামীর মরদেহ নিয়ে শনিবার সকাল ১০টা ৫৭ মিনিটে চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে পৌঁছান।

সেখান থেকে আইয়ুব বাচ্চুকে সরাসরি নেয়া হয় তার শৈশবের প্রিয় জায়গা নানা বাড়ি, চট্টগ্রামের দক্ষিণ পূর্ব মাদারবাড়িতে।

নানা বাড়ি থেকে রূপালী গিটারের জাদুকরের মরদেহ বিকেল ৩টার কিছু পরে আনা হয় চট্টগ্রামের জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ প্রাঙ্গনে। সেখানে ভক্তরা শেষবারের মতো দেখে নেন প্রিয়শিল্পীর মুখ।

বাদ আসর এই মাঠেই আইয়ুব বাচ্চুর নামাযে জানাযা হবে। এরপর দাফনের জন্য নেয়া হবে ১৫ বছর আগে মাকে দাফন করা সেই চৈতন্যগলির বাইশ মহল্লার কবরস্থানে।

ইতোমধ্যে জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ প্রাঙ্গনে হাজির হয়েছেন জেলার শীর্ষ কর্মকর্তা থেকে শুরু করে ব্যবসায়ী, রাজনীতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা। আছেন হাজারো ভক্ত।

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: