Monday, 20 May, 2019 | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |
Advertisement

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে লিডিং ইউনিভার্সিটির শ্রদ্ধাঞ্জলি

দৈনিকসিলেটডেস্ক : শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপণ করেন লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী, ট্রেজারার বনমালী ভৌমিক, শিক্ষক ও কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীবৃন্দ

অন্যান্য ভাষার প্রতি সম্মান রেখে মাতৃভাষার স্বকীয়তা বজায় রাখতে হবে . . .উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামরুজ্জামান চৌধুরী

শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন লিডিং ইউনিভার্সিটি পরিবার। ২১শে ফেব্রুয়ারী ২০১৯ বৃহস্পতিবার সকাল ১০:০০টায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি র‌্যালী শুরু হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাঙ্গনে অবস্থিত শহীদ মিনারে পুষ্পস্তপক অর্পণ করা হয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার বনমালী ভৌমিক, আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক এম. রকিব উদ্দিন, রেজিস্ট্রার মেজর (অব) মো: শাহ আলম, পিএসসি, বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ভাষা আন্দোলনে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপণ করে সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যালারী-১ এ ‘শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের তাৎপর্য’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন ও দেশকে উন্নয়নের শীর্ষে নিয়ে যেতে হলে দেশ প্রেম থাকতে হবে। অন্যান্য ভাষার প্রতিও আমাদের সম্মান দেখাতে হবে, বিশ্বপরিক্রমায় বিভিন্ন ভাষায় জ্ঞান থাকার প্রয়োজনিয়তা রয়েছে। তার পরও নিজের ভাষার স্বকীয়তা বজায় রাখতে হবে। তিনি বলেন, মাতৃভাষা রক্ষার জন্য ভাষা আন্দোলন থেকেই বাংলার স্বাধীনতার ডাক আসে, যার ফলশ্রুতিতে আজ আমরা স্বাধীন। আমাদের বাহান্নের ভাষা আন্দোলনের শহীদদের রক্ত বৃথা যায়নি। বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রীয়ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেই আমাদের অনেক সাফল্য ও অর্জন এসেছে। একুশ আমাদের স্বাধিকার চেতনার ভিত্তিমূল। একুশের পথ ধরেই রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মাধ্যমে আমরা লাভ করেছি স্বাধীন মাতৃভূমি বাংলাদেশ। লিডিং ইউনিভার্সিটির লাইব্রেরীতে একটি নাগরী ভাষা কর্ণার স্থাপনের বিষয়ে ইংরেজি বিভাগরে শিক্ষক আবু সাহিদ মো: নাহিদের প্রস্তাবে সিলেটের আঞ্চলিক ভাষা নাগরীর ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে উপাচার্য বলেন, লিডিং ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান দানবীর ড. সৈয়দ রাগীব আলীর পৃষ্ঠপোষকতায় নগরীর মধুবন ভবনে নাগরী ভাষা ইনস্টিটিউট রয়েছে। লিডিং ইউনিভার্সিটির লাইব্রেরীতেও একটি কর্ণার স্থাপনের বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ভাষা আন্দোলনকে আমাদের প্রাণের কথা উল্লেখ করে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ট্রেজারার বনমালী ভৌমিক বলেন, অমর ২১শে ফেব্রুয়ারি আজ। মায়ের ভাষার দাবিতে বাঙালির আতœত্যাগের মহিমাময় এদিন। আজ জাতি শ্রদ্ধার সঙ্গে স্বরণ করছে সেই শহীদদের যাদের আতœত্যাগে আমরা পেয়েছিলাম মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার। যাদের ত্যাগে বাংলা বিশ্ব আসনে পেয়েছে গৌরবের অবস্থান। ভাষা শহীদদের আত্বত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে তিনি তাদের আতœার মাগফেরাত কামনা করেন।

লিডিং ইউনিভার্সিটির ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো: কাওসার হাওলাদের উপস্থ্াপনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. এম. রকিব উদ্দিন, রেজিস্ট্রার মেজর (অব) মো: শাহ আলম, পিএসসি, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর মো: রাশেদুল ইসলাম, কবিতা আবৃতি করেন ইংরেজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মানফাত জাবিন হক, স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক কাজী জাহিদ হাসান।

উক্ত অনুষ্ঠানে লিডিং ইউনিভার্সিটির সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহন করেন।

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: