Tuesday, 25 June, 2019 | ১১ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |
Advertisement

দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত হলো কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা

দক্ষিণ কোরিয়া থেকে মনির হোসেন পাটোয়ারী:দক্ষিন কোরিয়ার জনপ্রিয় সংগঠন ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়ার আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো তৃতীয় ইপিএস বাংলা কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা। দক্ষিন কোরিয়ার বাংলাদেশী অধ্যুষিত উজম্বু এরিয়ার সংউরী মসজিদে গত ২ জুন রবিবার স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২ টায়।
ইপিএস বাংলা কমিউনিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক রাসেদ সিকদারের কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হয় কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা।

প্রতিযোগিতায় কোরিয়াতে অবস্থানরত বিভিন্ন মুসলিম দেশের ৬৫ প্রতিযোগী রেজিষ্ট্রেশনের মাধ্যমে প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করেন ৷ উল্লেখ্য প্রতিযোগি গন স্বাগতিক কোরিয়া, বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, কিরগিস্থান,গাম্বিয়া, সেনেগাল, কাজাকিস্তান।
কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতায় বিচারক হিসেবে ছিলেন সংউরী মসজিদের খতীব মাওঃমুফতি নজরুল ইসলাম (বাংলাদেশী),মাওঃনিয়াজ উদ্দিন খতীব থকজং মসজিদ (কাজাকিস্হান), মাওঃখালেদ খতীব খোয়াংজু মসজিদ ৷
প্রথম পর্বে প্রত্যেক প্রতিযোগিকে বিচারক গন ৩ মিনিট করে সুযোগ দেন তাদের পছন্দ অনুযায়ী আয়াত পাঠ করার জন্য, তারপর সেখান থেকে সেরা ১০ জন বাছাই করেন। দ্বিতীয় পর্বে প্রতিযোগিতা করে টপ টেনে আসা সেরা ১০ জন।
প্রত্যেক প্রতিযোগি প্রথমে বিচারক সিলেক্ট দেওয়া সুরা তেলওয়াত করে এরপর বিচারক গন কোরআনের বিভিন্ন আয়াত সিলেক্ট করে দেন তারপর তেলোওয়াত করতে বলেন সেখান থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে চুড়ান্ত হয় প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ৷ বাংলাদেশ সহ মুসলিম বিভিন্ন দেশের ৬৫ জন প্রতিযোগি নিয়ে অনুষ্ঠিত প্রথম পর্বের কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতায় বিচারকদের রায়ে ১০ জন ফাইনাল রাউন্ডের জন্য মনোনীত হয়। ফাইনাল রাউন্ডে নিজের সর্বোচ্চ প্রতিভার সাক্ষর রেখে তিন বিচারকের ১২০ মার্কসের মধ্যে ১০৪ মার্কস পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হন বাংলাদেশী হাফেজ আহম্মেদ হাসনাইন। রানার্স আপ নির্বাচিত হয় বাংলাদেশেরই আরেক প্রতিযোগী মোজাম্মেল হক তার মার্কস ১০২। ৯৮ মার্কস নিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন সেনেগালের ডাম সিসে
প্রতিযোগিদের উৎসাহ প্রদান করতে সেরা দশের সবার জন্য ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ও জিএমই রেমিট্যান্সের পক্ষ থেকে ছিলো বিশেষ সান্ত্বনা পুরষ্কার ও সার্টিফিকেট। এছাড়াও দুইজন সর্বকনিষ্ঠ প্রতিযোগীর জন্যও ছিলো উৎসাহমূলক পুরস্কার।

এই প্রতিযোগিতায় সহোযোগিতা করে ইপিএস বাংলা কমিউনিটির অফিসিয়াল স্পনসর জী এম ই রেমিটেন্স, কাতার এ্যাম্বাসী ও কাতার চ্যারিটী, সুমাইয়া টেক এবং কে এম এফ। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের পুরুস্কার বিতরন করেন কাতার দূতাবাসের কর্মকর্তা আনোয়ার আদাম,জীএমই রেমিটেন্স বাংলাদেশ মার্কেটিং ম্যানেজার সজীব ও লোন অফিসার কামরুল হাছান রাজ এবং ইপিএস বাংলা কমিউনিটির সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ সহ মসজিদ কমিটির সভাপতি এম জামান সজল।

পুরুস্কার হিসাবে প্রথম পুরুস্কার ৭ লাখ কোরিয়ান উওন দ্বিতীয় পুরুস্কার ৫ লাখ কোরিয়ান উওন তৃতীয় পুরুস্কার ৩ লাখ কোরিয়ান উওন।

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: