Tuesday, 25 June, 2019 | ১১ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |
Advertisement

সিলেট গণপিটুনিতে ‘স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মী’কে হত্যা…

দৈনিকসিলেটডটকম:সিলেট নগরীতে গণপিটুনিতে এক যুবকে হত্যা করা হয়েছে! বুধবার রাত ১১ টার দিকে নগরীর বন কলাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তির নাম দুদু মিয়া। তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, দুদু মিয়া দীর্ঘদিন ধরে বনকলাপাড়া এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে আসছিল। বুধবার রাতে সে দা নিয়ে নিয়ে সাদিয়া টেলিকম নামে একটি দোকানে এক লোককে মারতে যায়। তখন স্থানীয় জনতা বিষয়টি টের পেয়ে ডাকাত এসেছে বলে শাহ রুমি মসজিদ থেকে মাইকিং করেন। সাথে সাথে এলাকাবাসী জড়ো হতে থাকেন এবং পরে তাকে ধরে গণপিটুনি দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, এলাকার সড়কের মধ্যে দুদু লাশ পড়ে আছে। তাঁর মাথায় আঘাত করা হয়েছে। লাশের হাতে একটি দা রয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, নিহত দুদুর বিরুদ্ধে ধর্ষণসহ একাধিক মামলা রয়েছে। গত পহেলা বৈশাখের পরের দিন বন কলাপাড়ায় সংঘটিত একটি ধর্ষণ মামলার আসামী দুদু। তিনি নিজেকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মী ও কাউন্সিলরের লোক হিসেবে এলাকায় পরিচয় দিতেন।

এদিকে এই হত্যাকান্ড নিয়ে নানা ধরনের প্রশ্ন ওঠেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা জন নানা ধরনের মন্তব্য করছেন।
অনুক্ত কামরুল নামে একজন তার ফেইসবুকে লিখেছেন-

‘সিলেট নগরীর বনকলাপাড়ায় গণধর্ষণ ও ডাকতিসহ ৪/৫টি মামলার আসামি স্বেচ্ছাসেবকলীগ কর্মী দুদু মিয়া পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে!

একটা নিউজে দেখলাম কোন একজনকে সে সাঙ্গ পাঙ্গু নিয়ে মারতে গেছে পরে তারাই ডাকাত ডাকাত রব তুলছে।
অন্যদিকে মাত্র ৪/৫ দিন হলো সে জেল থেকে জামিনে ছাড়া পেয়ে বের হলো, তবে কি কারো সাথে পূর্ব শত্রুতা থেকেই এটা হয়েছে? বেশ কিছু প্রশ্ন সামনে চলে আসলো।
সে একজন অপরাধী এটা ঠিক, তাই বলে সুযোগের ব্যবহার করে তাকে খুন করা হয়নি তো?
যদি সে ডাকাতি করতেই যাবে তবে এতদিন ধরে এই এলাকায় কেমন করে সে বসবাস করে আসছে? ছবিতে দেখলাম লাশের হাতে দা আছে। স্বাভাবিক বিবেক আপনাদের কি বলে? ডাকাতের হাতে দা তারপরও যারা তাকে কোপাচ্ছিল তাদের সে এই দা দিয়ে কোপ দিবে না? যদি দিয়ে তাকে তবে সেই আহত লোকজন কোথায়?

আর আমজনতার হাতে নিহত একজনের শরীরে এত দায়ের কোপ আসে কেমন করে?

নাকি পরিকল্পিত ভাবে খুন করে তা গণধোলাই বলে চালিয়ে দিতে চাইছে একটা গ্রুপ। সেতো সেচ্ছাসেবী লীগ করতো। তবে কি দলীয় কোন্দলে খুন হলো?
এর নেপথ্যে অনেক কিছু হয়তো থাকতে পারে। তার সাথে যারা ছিল বা সে যে ছেলেকে মারতে গেছে বলে খবর প্রকাশ হয়েছে তাকে ধরতে পারলে সব বের হয়ে আসবে।
বাতাসে অনেক কথাই রটে বেড়াচ্ছে, হুম🤔’

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
দৈনিক সিলেট ডট কম
২০১১

সম্পাদক: মুহিত চৌধুরী
অফিস: ২৬-২৭ হক সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার সিলেট
মোবাইল : ০১৭১ ২২ ৪৭ ৯০০,  Email: dainiksylhet@gmail.com

Developed by: