Add IUS

Thursday, 30 March, 2017 | ১৬ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |
সংবাদ শিরোনাম
সুনামগঞ্জ-২ ও কুসিক নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে  » «   সুনামগঞ্জ-২ আসনের উপনির্বাচন আজ  » «   মৌলভীবাজারে চলছে ‘অপারেশন হিট ব্যাক’  » «   নিহত নারী জঙ্গির লাশ শনাক্ত হয়নি  » «   মৌলভীবাজারে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শুরু,গুলির শব্দ  » «   সোয়াত টিম মৌলভীবাজারে এসে পৌঁছেছে  » «   জঙ্গি ইস্যু নিয়ে যা বললেন সায়রা মহসীন  » «   মৌলভীবাজারের দুই স্থানে ১৪৪ ধারা জারি  » «   ‘মৌলভীবাজারে জঙ্গি অভিযানে প্রয়োজনে নামানো হবে সেনাবাহিনী’  » «   মৌলভীবাজারে ২ আস্তানায় এক ডজন জঙ্গি!  » «   মৌলভীবাজারে দুটি জঙ্গি আস্তানা ঘিরে পুলিশ, গুলি-বিস্ফোরণ  » «   সেতু না থাকায় বাঘা, বাদেপাশা-শরিফগঞ্জবাষীর সীমাহীন দূর্ভোগ  » «   এবার সবার নজর দিরাই-শাল্লার দিকে  » «   ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ সমাপ্ত ঘোষণা  » «   আতিয়া মহল পুলিশের কাছে হস্তান্তর  » «  





পেঁয়াজের কেজি ৮ টাকা!

onion__15171দৈনিকসিলেটডেস্ক: গত কয়েকদিনের ব্যবধানে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ভারতীয় পেঁয়াজের আমদানি বেড়েছে কয়েকগুণ। ফলে কেজিতে দাম কমে এখন পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ৮-১০ টাকায়। গত এক সপ্তায় এই বন্দর দিয়ে আমদানি করা হয়েছে প্রায় ১৩ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজ।

ব্যবসায়ীরা বলছে, ঈদুল আজহা উপলক্ষে বেশি করে পেঁয়াজ আমদানি করেছে বন্দরের ৩০ জন ব্যবসায়ী। এখন বন্দরে সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় দাম অনেক কমে গেছে। সময়মত বাজারজাত করতে না পারায় ইতোমধ্যে পেঁয়াজে পচন ধরেছে। একারণে ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়ায় আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে।

বন্দরের বেসরকারি অপারেটর পানামা হিলি পোর্ট লিংক সূত্রে জানা গেছে, গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই বন্দর দিয়ে ৬৮০টি পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক দেশে আসে। তাতে আমদানি হয়েছে প্রায় ১৩ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজ। আবার গত তিন মাসের হিসেব পর্যালোচনা করে দেখা যায়, আগস্ট মাসে আমদানি করা হয়েছে ১ হাজার ৭৫৮টি ট্রাকে ৩৬ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজ। আর জুলাই মাসে ১ হাজার ৩০৪টি ট্রাকে ২৫ হাজার ৭০৫ মেট্রিকটন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে।

বন্দরের আড়তদাররা জানান, এক সপ্তাহ আগেও মানভেদে পাইকারি হিসেবে ১৪-১৭ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হয়েছে পেঁয়াজ। কিন্তু এখন আমদানি বেড়ে যাওয়ায় ভারতীয় পেঁয়াজ মানভেদে ৮ টাকা থেকে ১০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। বর্তমানে খুচরা বাজারে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়।

স্থানীয় আমদানিকারক এনামুল হক চৌধুরী ও মমিনুল ইসলাম মমিন বলেন, ভারত থেকে এক কেজি পেঁয়াজ আমদানি করতে খরচ হয় ১৩-১৪ টাকা। এই পেঁয়াজ পাইকারি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে ৮-১০ টাকায়। কেজিতে ৫-৬ টাকা লোকসানে বিক্রি করতে হচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে পথে বসা ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না।

হিলি বাজারের আড়তদার শাহাবুল ইসলাম জানান, ভারতীয় পেঁয়াজের দাম কমে বর্তমানে ১০ টাকায় নেমেছে। আবার কখনো আরও কম দামে কিনছেন ক্রেতারা। গত কয়েকদিনে ভারত থেকে প্রচুর পরিমাণে পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। ৮-১০দিন আগেও এই পেঁয়াজ ১৪-১৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। দেশি পেঁয়াজ ৩২-৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তিনি।

ব্যবসায়ীদের একটি সূত্র জানায়, হিলি স্থলবন্দর দিয়ে যেসব পণ্য আমদানি হতো, স্থানীয় কিছু সমস্যার কারণে তার অধিকাংশ পণ্য আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে। এখন সেসব ব্যবসায়ীরা ঝুঁকে পড়েছে পেঁয়াজ আমদানিতে। একারণে পেঁয়াজের এই দুরাবস্তা।

বন্দরের কয়েকটি আড়ত ঘুরে জানা গেছে, আমদানি করা ভারতের নাসিক, ভেলোর, ইন্ডোর, রাজস্থান, পাটনা থেকে ছোট, মাঝারি ও বড় আকারের পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। গুদামগুলোতে পেঁয়াজে ঠাসা। এখান থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকাররা ৮-১০ টাকা, একটু ভালো মানের ১১ টাকা দরে কিনছেন।

Developed by: