ad3

Monday, 27 March, 2017 | ১৩ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |
সংবাদ শিরোনাম
‘আতিয়া মহলে’ অভিযান চলছে, গুলি-বিস্ফোরণের শব্দ  » «   সিলেটজুড়ে স্বজনদের আহাজারি  » «   সিলেটে জঙ্গি আস্তানায় ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’-এর এক্সক্লুসিভ ভিডিও  » «   আতিয়া মহলে দুই জঙ্গি নিহত, অভিযান চলবে  » «   থেমে থেমে চলছে গোলাগুলি ও শক্তিশালী বিস্ফোরণ  » «   আতিয়া মহলের জঙ্গি আস্তানায় বড় জঙ্গি থাকতে পারে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   মহান স্বাধীনতা দিবস আজ  » «   সিলেটে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬ আইএসের দায় স্বীকার  » «   চুয়াডাঙ্গায় ট্রাক-নসিমন মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১০  » «   জঙ্গি আস্তানার পাশে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৩  » «   আতিয়া মহলে’র ২০০ গজ সামনে‘আত্মঘাতী’ হামলা, আহত ৬  » «   আতিয়া মহলের চারিদিকে বিস্ফোরকের ফাঁদ!  » «   এখনো থেমে থেমে গুলি-বিস্ফোরণের শব্দ ভেসে আসছে  » «   শিববাড়িতে অভিযান দেখতে গিয়ে গুলিতে আহত ১  » «   শেষ মুহুর্তের অভিযান চলছে: বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দ  » «  





ফ্রান্সেও কি প্রবেশ নিষিদ্ধ হচ্ছে মুসলিমদের?

w1দৈনিকসিলেটডেস্ক:মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মুসলিম নাগরিকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ নীতি নিয়ে যত সমালোচনাই হোক না কেন, ফ্রান্সের মেরিন লো পেন কি বললেন জানেন?

সূত্রের খবর, মেরিন লো পেন যদি নির্বাচনে জয়ী হন, তাহলে ট্রাম্পকে অনুসরণ করবেন। ফ্রান্সে অভিবাসীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে পারেন তিনি। অর্থাৎ, নির্বাচনে জয়ী হলে, মুসলিম দেশের নাগরিকদের ফ্রান্সে প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে পারেন পেন।

পেনের দাবি, যে ৬টি বা ৭টি দেশের নাগরিকদের ফ্রান্সে প্রবেশ নিষিদ্ধ হতে পারে, সেই দেশগুলি থেকে সন্ত্রাস চোখ রাঙানি দেয় প্রতিনিয়ত। আর সেই কারণে তিনি জিতলে ওই মুসলিম দেশের নাগরিকদের ফ্রান্সে প্রবেশ নিষিদ্ধ হতে পারে।

শুধু তাই নয়, ‘ওনলি ফ্রান্স’ স্লোগান দিয়ে ইতিমধ্যেই নির্বাচনের ময়দান দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন পেন। তবে, মুসলিম দেশের নাগরিকদের এভাবে প্রবেশ নিষিদ্ধ করলে, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা মুসলিম নাগরিকদের ওপর হামলার ঘটনা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।
এদিকে, মুসলিম নাগরিক ও শরণার্থীদের নিষিদ্ধ করতে চাইছে ইউরোপের আরো কয়েকটি দেশও। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় এমনই তথ্য উঠে এসেছে। যা দেখে চোখ কপালে উঠছে বিভিন্ন মহলের।

পরিসংখ্যান বলছে, ইউরোপের ৫৫% মানুষ চাইছেন যে মুসলিম দেশ থেকে ইউরোপে শরণার্থীদের ঢোকা বন্ধ করে দেয়া হোক। তবে সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, ওই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন ইউরোপের ২০% মানুষ। আর ২৫% মানুষ জানিয়েছেন, এ বিষয়ে তারা কিছু জানেন না।
অর্থাৎ, মুসলিম দেশের নাগরিকদের মার্কিন মুলুকে প্রবেশ নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প যে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চাইছেন, এবার সেই পথ নিতে পারে ফ্রান্সও। এমনই আশঙ্কা দেখা দিয়েছে বিভিন্ন মহলে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

Developed by: