Home Home Page Rank NTV ONLINE ETV ONLINE BANGLA  VISION ONLINE CHANEL I ONLINE EKATTOR TV ONLINE
২৩-১২-২০১৪ মঙ্গলবার

 দৈনিক সিলেট ডটকম সিলেট বিভাগের সর্বাধিক জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল-আমাদের সাথে থাকুন, নিজেকে আপডেট রাখুন...

 
 
এই জনপদ
 
 
 
 
 

সিলেট ২২ ডিসেম্বর:
জালালাবাদ প্রবাসী কল্যাণ পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখার অন্যতম সদস্য কালাম আহমদের সম্মানে পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে এক মতবিনিময় সভা সোমবার বিকেল ৪ টায় জিন্দাবাজার সমবায় ভবনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়।
পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক এম. শফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমদ চৌধুরীর পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন পরিষদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ দুলাল হোসেন, আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক মুফতি এডভোকেট মাওলানা আব্দুর রহমান চৌধুরী, সমাজকল্যাণ সম্পাদক ডাঃ এ.এ.এম. শিহাব উদ্দিন, ব্যারিষ্টার ফয়েজ উদ্দিন আহমদ, এডভোকেট মুহিউদ্দিন, অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার, আছমা বেগম, লাকি বেগম, কাত্তছার আহমদ চৌধুরী, মামুনুর রশিদ মামুন, রেহানা আক্তার রানী, প্রভাষক এনামুল হক লস্কর, মোহাম্মদ উসমান গনি, ফুলনেহার বেগম, হাজী আপ্তাব উদ্দিন, জাহির উদ্দিন, সাইফুল ইসলাম শামীম, মোঃ নজরুল আলম, মঞ্জুর হোসেন, আবুল খয়ের, মোঃ ইদ্রিস আলী, প্রমূখ।
সভায় বক্তারা দেশে প্রবাসীদের নিরাপত্তা বিধানে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহনের দাবী জানিয়ে বলেন প্রবাসীদের বৈদেশিক মুদ্রায় আমাদের রাজস্ব ভান্ডার পরিপূর্ণ হলেও তাদের কল্যাণে আমাদের রাষ্ট্র কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না। এতে করে প্রবাসীরা নিজ মাতৃভূমিতে আসা বা কোন কার্যকম পরিচালনায় অনীহা প্রকাশ করছেন,যার ফলে আমাদের অর্থনীতিতে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হচ্ছে। বক্তারা প্রবাসী অধ্যূষিত সিলেট অঞ্চলের মানুষের প্রাণের দাবী সিলেট এম.এ.জি ওসমানী আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দরের পূর্ণাঙ্গ কার্যক্রম চালু ও প্রবাসী মন্ত্রনালয়ের কার্যকম জোরদারের জোর দাবী জানান।
   

 
 
 
 
 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সিলেট মহানগরী সেক্রেটারী মাওলানা সোহেল আহমদ বলেছেন, জামায়াত সারাদেশে প্রতিটি গ্রামে গরীব-দুঃস্থদের মাঝে সামর্থ অনুযায়ী শীত বস্ত্র পৌছে দিচ্ছে। এই শীত বস্ত্র পুরো শীত নিবারণ না হলেও শীতার্তদের পাশে দাড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে জামায়াত বরাবরের ন্যায় এই কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি ব্যক্তি উদ্যোগের পাশাপাশি রাষ্ট্রের উদ্যোগে এসব শীতার্তদের পাশে দাড়ানোর জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান। তিনি আরো বলেন, সরকার এসব গরীব-দুঃস্থদের পাশে না দাড়িয়ে দুর্নীতি আর লুটপাটে ব্যস্ত রয়েছে। 
তিনি  সোমবার শাহপরাণ থানা পূর্ব জামায়াতের উদ্যোগে গরীব-দুঃস্থদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।  থানা আমীর  শামীম আহমদের সভাপতিত্বে সহ-সেক্রেটারী মাওলানা ফয়জুর রহমানের পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন  মাওলানা আশরাফ আলী,  আব্দুল জলিল, ফতেহ গাজী, ফয়জুল ইসলাম, দেওয়ান কুদ্দুছ প্রমুখ।
               

 
 
 
 
 
 
 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার লুকাবাদ,ধনপুর,পলাশ,বাদাঘাট ও ফতেপুর এই ৫টি ইউনিয়নের একহাজার অসহায় ও হতদরিদ্র শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে।
রোববার ও সোমবার দু’দিনব্যাপী সুনামগঞ্জের কৃতি সন্তান লন্ডন প্রবাসী ও সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সহসভাপতি আব্দুল লতিফ জেপি তার নিজস্ব অর্থায়নে শীতার্ত পরিবারগুলোর মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন,জেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ সোহেল আহমদ,সলুকাবাদ ইউপি বিএনপির সভাপতি মোঃ রওশন আলী,সাধারন সম্পাদক মোঃ মজিবুর রহমান,পলাশ ইউপি বিএনপি নেতা মোঃ ফুল মিয়া,পলাশ ইউপি প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল আলিম,ধনপুর ইউপি বিএনপি সভাপতি মনিরুজ্জামান,সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম,জেলা মহিলা দলের সভানেত্রী সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মদিনা আক্তার,জেলা যুবদল নেতা মমিন তালুকদার, আব্দুল লতিফ, নবীনুর, তারেক, ইয়াকুব,দক্ষিণ বাদাঘাট ইউনিয়ন বিএনপি নেতা নুরুল ইসলাম,বাছিত মিয়া,নুর আলম,রমজান মিয়া,সুকেশ দেবনাথ,বজলু মিয়া,মোঃ আলমগীর হোসেন,রাজু আহমদ,ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা রাসেল আহমদ ও আবুল হোসেন  প্রমুখ। লন্ডন প্রবাসী ও সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সহসভাপতি আব্দুল লতিফ জেপি বলেন,দেশে শীত ঝেকে বসেছে। তাই জেলার হতদরিদ্র ও অসহায় গরীব মানুষের পাশে দাড়াতে সরকার ও সমাজের বৃত্তশালীদের এগিয়ে আসার আহবান জানান।
               

 
 
 
 
 
 
 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
সুনামগঞ্জে সংলাপ গ্র্যাজুয়েট ১২ শতাধিক কিশোরেীদের সনদ বিতরণ উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অুনষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় ভলান্টারী এসোসিয়েশন ফর রুরাল ডেভেলপমেন্ট(ভার্ড) এর আয়োজনে ও স্যোস্যাল ইন্টারভেনশন টুয়ার্ডস সামটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট এর সহযোগিতায় শহরের শহীদ জগৎজ্যোতি পাঠাগার মিলনায়তন হলে কিশোরীদের হাতে সনদ তুলে দেন জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম।

ভার্ডে প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক এমরানুল হক কামালের সভাপতিত্বে ও সুস্মিতা পাল ও সাগরিকা আক্তারের যৌথ সঞ্চালনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম।
এছাড়াও বক্তব্য রাখেন জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ নিজাম উদ্দিন,সিনিয়র সোস্যাল মবিলাইজার মোঃ রেজাউল করিম ও লক্ষণশ্রী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মোঃ আবুল কালাম প্রমুখ।

প্রধান অতিথি শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন,কিশোরীরা ১৮ বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত যেন কোনভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ না হন । পাশাশি জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনে এজন্য কিশোরী ও অভিভাবকদের আরো বেশী করে সচেতন হওয়ার আহবান জানান। সভা শেষে কিশোরীদের হাতে সন; তুলে দেন জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম।
               

 
 
 
 
 
 
 

কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
কর বাজেট সুশাসন ও বাজেটের গণন্ত্রায়ন চাই,সবার জন্য বাজেট,সবাই মিলে বাজেট এই শ্লোগান নিয়ে সুনামগঞ্জে এক বর্ণাঢ্য  র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় গনতান্ত্রিক বাজেট আন্দোলন সুনামগঞ্জ জেলা কমিটির উদোগে সুনামগঞ্জ শহরের উকিলপাড়াস্থ প্রেসক্লাব চত্বর থেকে র‌্যালীটি বের হয়ে বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ শেষে প্রেসক্লাবে গিয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। বাবু র্ধূজুটি কুমার বসুর সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক আশীষ কুমার দাসের সঞ্চালনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন। সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক অধ্যক্ষ পরিমল কান্তি দে,সাবেক অধ্যক্ষ দিলীপ কুমার মজুমদার,নারীনেত্রী শিলা রায় ,সুনামগঞ্জ জনকল্যাণ সংস্থা সুজনের নির্বাহী পরিচালক নির্মল ভট্রাচার্য্য,কোরবার নগর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আবুল বরকত,সংবাদকর্মী মোঃ আকরাম উদ্দিন । এছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণীপেশার লোকজন অংশ নেন। বক্তারা বলেন গনতস্ত্র সুসংহত ছাড়া দেশের সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব নহে। দেশ থেকে র্দূনীতি দূর করে কর বাজেট  সুশাসন প্রতিষ্ঠায় জনগনের সচেতনতার পাশাাপাশি জনপ্রতিনিধিদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতের কোন বিকল্প নেই।
               

 
 
 
 
 
 
 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ওয়ারেন্ট ভূক্ত ২ আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের বেত কোনা গ্রামের মৃত মির বক্স\'র ছেলে দুদু মিয়া (৪৫) ও একই ইউনিয়নের চুরখাই গ্রামের মৃত মছদ্দর আলীর ছেলে আকিক (৩৫) কে গোপন সংবাদের বিত্তিতে গত রবিবার রাতে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার এস আই আমিরুল ইসলাম’র নেতৃত্বে পুলিশের ৭-৮ জনের একটি দল অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করেন।
    পুলিশ সূত্রে আরও জানা যায়, দুদু মিয়ার বিরুদ্ধে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় ডাকাতি, মার্ডার ও মারামারি মামলার আসামী, সে ঐ সকল মামলার ওয়ারেন্ট ভূক্ত আসামী থাকায় দীর্ঘ দিন যাবৎ পলাতক ছিল। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার মামলা নং- জি আর ৯০/১২, ২৭/৫, ৯৭/১২।   অপরদিকে আকিক মাদক চুরা চালান মামলার ওয়ারেন্ট ভূক্ত আসামী ছিল। তার বিরুদ্ধে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার মামলা নং- জি আর ১০২/১৪।
    এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল-আমিন গ্রেফতারের সত্যতা স্বীকার করে এ প্রতিবেদককে বলেন, গ্রেফতারকৃত ২ জন ওয়ারেন্ট ভূক্ত ছিল, তারা দীর্ঘ দিন যাবৎ পলাতক থাকায় তাদের নিজ নিজ গ্রাম থেকে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয়। সোমবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত ২ আসামীকে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
               

 
 
 
 
 
 
 

ছাতক প্রতিনিধি :
সুনামগঞ্জের ছাতকে অবস্থিত লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেডের উদ্যোগে বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প পরিচালনা সোমবার সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারা বাজার উপজেলার বাংলা বাজার ইউনিয়নে শেষ হয়েছে। এর আগে ছাতকে লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট প্ল্যান্টের কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার এবং নরসিংপুর ইউনিয়নে একই ধরনের ক্যাম্প পরিচালনা করা হয়। মৌলভীবাজার বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতাল এই ক্যাম্প পরিচালনায় সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেন। তিন দিনব্যপী এই ক্যাম্পে প্রায় ১হাজার ৫শত রোগী চক্ষু বিশেষজ্ঞের কাছে সেবা গ্রহন করেন। দোয়ারা বাজার উপজেলা চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী বীরপ্রতীক এবং নরসিংপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান নিজ-নিজ এলাকায় এই ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন।
               

 
 
 
 
 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
রোটারিয়ানরা সারাবিশ্বে আর্ত মানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছে। রোটারিয়ানরা তাদের কর্মকান্ডের মাধ্যমে মানুষের দ্বারে দ্বারে  সেবা পৌছিয়ে দিচ্ছে। মানব জীবনের সবচেয়ে মহৎ কাজ হচ্ছে আর্তমানবতার সেবা করা। রোটারিয়ানরা সমাজের অন্যান্য মানুষ থেকে একটু ভিন্ন। তারা তাদের মেধা ও পরিশ্রম দিয়ে মানুষের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন কর্মকান্ড চালিয়ে যায়। রোটারির মাধ্যমে মানুষের কষ্ট দূর করে বাংলাদেশকে একটি সুন্দর দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। রোটারী ক্লাব অব মেট্রোপলিটন সিলেট-এর উদ্যোগে সাইনবোর্ড হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বক্তারা একথা বলেন।
সোমবার নগরীর মাছুমপুরস্থ জামিয়া মাছুমিয়া ইসলামিয়াতে এ সাইনবোর্ড হস্তান্তর অনুষ্ঠিত হয়।
রোটারী ক্লাব অব মেট্রোপলিটন সিলেট-এর প্রেসিডেন্ট রোটারিয়ান কাজী হেলালের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী সিটি কাউন্সিলর তওসিফ বক্স লিপনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন পি.পি রোটারিয়ান এম নূরুল হক সোহেল, রোটারিয়ান ইকবাল হোসেন, রোটারিয়ান আহসান আহমদ খান, রোটারিয়ান আখতার চৌধুরী রুবেল, রোটারিয়ান রেজাউল করিম, রোটারিয়ান ইঞ্জিনিয়ার মইনুল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।

               

 
 
 
 
 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
যুব জমিয়ত বাংলাদেশ সিলেট জেলা শাখার বুধবার সদস্য সম্মেলন ও কাউন্সিল অধিবেশন নগরীর শহীদ সোলেমান হলে সকাল ১১ টায় অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত কাউন্সিল ও সদস্য সম্মেলন সফলের লক্ষ্যে সোমবার বাদ আসর বন্দরবাজারস্থ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সম্মুখ থেকে যুব জমিয়ত বাংলাদেশ সিলেট জেলা শাখার এক প্রচার মিছিল বের হয়। মিছিলটি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন পয়েন্ট প্রদক্ষিণ করে স্থানীয় কোর্ট পয়েন্টে  এক সংক্ষিপ্ত পথ সভায় মিলিত হয়। সংগঠনের জেলা সভাপতি মাওলানা ওলিউর রহমানের সভাপতিত্বে ও সহ-সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইলিয়াছ আহমদের পরিচালনায় প্রচার মিছিল পরবর্তী পথ সভায় বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন জেলা যুব জমিয়তের সহ-সভাপতি মাওলানা মুখতার হোসাইন, জেলা সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুখতার আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক রোটারিয়ান মাওলানা মোহাম্মদ আলী, জেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি মাওলানা সাইফুর রহমান, যুব জমিয়তের প্রচার সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী, যুব নেতা মাওলানা ফয়ছল আহমদ, হাফিজ শাহ মো: আদনান, সৈয়দ ওবায়দুর রহমান, দিলাল উদ্দিন, মাওলানা নাজিম উদ্দিন, মহানগর ছাত্র জমিয়তের সেক্রেটারী এম. বেলাল আহমদ চৌধুরী, তোফায়েল আহমদ চৌধুরী, মহিউদ্দিন মাসুম, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল কাদির জাকি, আরশাদ নোমান, আতিকুর রহমান নগরী, হাফিজ শাহিদ হাতিমী, আমিনুল  ইসলাম, মইনুল ইসলাম, দেলোয়ার হোসাইন, আব্দুর রহিম, জামাল আহমদ, নাজমূল ইসলাম প্রমুখ। 
এদিকে জেলা যুব জমিয়তের সদস্য সম্মেলন ও কাউন্সিল অধিবেশন সফলের লক্ষ্যে গতকাল সোমবার বাদ জোহর বাস্তবায়ন কমিটির এক পরামর্শ সভা বন্দরবাজারস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনু্িষ্ঠত হয়। এতে যুব জমিয়তের সকল দায়িত্বশীল ও সদস্যবৃন্দকে যথাসময়ে কাউন্সিল অধিবেশনে উপস্থিত থাকার আহবান জানান।
               

 
 
 
 
 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
স্বামী ও সন্তানদের উপর থেকে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তাদেরকে সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছেন সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দর্গাপাশা ইউনিয়নের আসামপুর গ্রামের সমুজ মিয়ার স্ত্রী নেকলুছ বিবি। সোমবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে মামলার সঠিক তদন্তের জন্য প্রশাসনিক উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষেরও হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।
লিখিত বক্তব্যে নেকলুছ বিবি বলেন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় দায়ের করা একটি ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় আমার স্বামী ও দুই পুত্রকে আসামী করা হয়েছে। মিথ্যা মামলার আসামী হয়ে আমার স্বামী ও সন্তানরা অসহায় দিনযাপন করছেন। যারা আমার স্বামী সন্তানদের আসামী করছে, তারা নিজেরাই এলাকায় মারামারি ও নীরিহ মানুষের উপর চালাচ্ছে একের পর এক নির্যাতন।
তিনি বলেন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় দায়ের করা (০৯) তাং-০৫/১১/২০১৪ ইং মামলায় আমার স্বামী সমুজ মিয়া, আমার দুই পুত্র বায়েজিদুর রহমান ও ওবায়দুর রহমানসহ আরো ২৬ জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলার বাদী প্রভাবশালীদের মদদে মিথ্যার আশ্রয়ে আমার স্বামী ও সন্তানদের আইনের চোখে অপরাধী বানানোর জন্য তাদেরকে আসামী করেছেন।
তিনি আরো বলেন, আমার স্বামী পরোপকারী ও গ্রাম্য সালিশ বিচারক। তিনি এলাকার নীরিহ মানুষের সেবা করে আসার পাশাপাশি সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে সবসময় অবস্থান করে আসছেন। আমার স্বামীকে সমাজ ও আইনের চোখে অপরাধী বানানোর জন্য এলাকার একটি প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় কতিপয় দুস্কৃতিকারীরা দীর্ঘদিন ধরে অপচেষ্ঠা চালিয়ে আসছে। সর্বশেষ গত নভেম্বর আসামপুর মৌজায় অবস্থিত জামখলার হাওরে সংঘটিত মৎস্যজীবীদের সংঘর্ষের ঘটনায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় আমার স্বামী সমুজ মিয়া ও আমার দুই পুত্রকে আসামী করা হয়। উক্ত মামলার বাদী দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দর্গাপাশা ইউনিয়নের পাইকাপন গ্রামের আব্দুল জব্বারের ছেলে নজমুল হোসেন ও তার চাচা ফয়জুল করিম এবং মামলার স্বাক্ষীরা অর্থের লোভে প্রভাবশালীদের মদদে প্রভাবিত হয়ে আমার স্বামীসহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে উক্ত মামলা দায়ের করেন। মামলার বাদী নজমুল ঘটনার দিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা সত্ত্বেও নিজে অক্ষত থাকায় প্রতীয়মান হয় এজাহারে বর্ণিত ঘটনার বিবরণ রহস্যজনক।
নেকলুছ বিবি বলেন, জামখলা হাওরের প্রায় ৫০০ একর জমির পানি নিস্কাশনের বেরীবাঁধ নিয়ে মৎস্যজীবীদের মধ্যে ঘটনার সূত্রপাত হলে ও বাদী আমার স্বামীকে ফাসানোঁর জন্য মামলার এজাহারে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধের কথা উল্লেখ করেছেন। মামলার এজাহারে ৩ নং আসামী আমার ছেলে ওবায়দুরের বিরুদ্ধে বন্দুক দিয়ে গুলি বর্ষণ করার অভিযোগ করা হয়। অথচ মামলার বাদীর পক্ষে দেওয়া তথ্যর ভিক্তিতে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের বক্তব্যে আমার ছোট ছেলে মামলার ২ নং আসামী বায়েজিদুর রহমানের বিরুদ্ধে গুলি বর্ষণের অভিযোগ প্রকাশিত হয়। মামলার এজাহার ও পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে দুই রকমের বক্তব্যে প্রমাণিত হয় ঘটনা সাজানো। দায়ের করা মামলায় বন্দুকের গুলিবর্ষণের কথা উল্লেখ করা হলে ও বাদীর বড় ভাই মৎস্যজীবী তফাজ্জল হোসেন গুলিতে মারা যাননি। মামলার এজাহারে বর্ণিত বাদীর লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে ‘লাঠির আঘাতে তার ভাই আঘাতপ্রাপ্ত হন’। এবং তাকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৎস্যজীবী তফাজ্জল হোসেন মারা যান।
এ ছাড়া ঘটনার দিন বাদীর লোকজন কর্তৃক প্রদান করা বক্তব্য সিলেটের বিভিন্ন স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। তাদের বক্তব্যে বন্দুকের গুলি ও বন্দুক দিয়ে আঘাত করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এবং পত্রিকায় আমার স্বামী সমুজ মিয়া,আলতাব আলী, আবু হুরায়রা, আজিজুল হক গংদের সাথে বিরোধ রয়েছে বলে প্রকাশ করা হয়। অথচ মামলার এজাহারে আবু হুরায়রা, আজিজুল হককে আসামী করা হয়নি।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, মামলার বাদী নজমুল  নিজের স্বার্থে আবু হুরায়রা, আজিজুল হক এর কাছ থেকে আর্থিক ফায়দা হাসিল করে তাদেরকে ও অন্যান্য আরো কয়েকজনকে আসামী করেননি। আক্রোশের বশবর্তী হয়ে তিনি আমার স্বামী ও সন্তানদের আসামী করেছেন। বর্তমানে আমার স্বামী ও সন্তানরা ঘর বাড়ী ছেড়ে পলাতক অবস্থায় অসহায় দিনযাপন করছেন। অপরদিকে তফাজ্জল হোসেন এর  লাশের সুরতহাল প্রতিবেদনে গুলি বর্ষণের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। সংবাদ সম্মেলনে তিনি মামলার সঠিক তদন্তের জন্য প্রশাসনিক উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

               

 
 
 
জনমত জরিপ

প্রবীণ রাজনীতিবিদ, সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেছেন জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে এদেশের অনেক মানুষকে তালিকা করে মেরেছেন, তার এ বক্তব্য আপনি সমর্থন করেন কি?

 
হ্যাঁ না
 
 

ফলাফল দেখুন

 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
সিলেটের জননন্দিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে হয়রানীর প্রতিবাদে ফুঁসে উঠছে সিলেটের মানুষ। এই ইস্যুতে হরতাল, মানববন্ধন, গণস্বাক্ষর, বিক্ষোভ মিছিল, সংহতি সমাবেশ, বিভিন্ন পেশাজীবী নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময়ের পর এবার রাজপথে নেমেছে পাড়া মহল্লার মানুষ। সোমবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সিলেট নগরীর ওয়ার্ডবাসীরা সিলেট নগরীজুড়ে একের পর এক মিছিল সমাবেশ করেন। মৌন মিছিল এবং সমাবেশ করেছেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলরবৃন্দও।

এসব সমাবেশে বক্তারা বলেছেন,  সিলেটের উন্নয়নকামী নেতা, জননন্দিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সিলেটবাসীর লক্ষাধিকভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। তার সাথে লক্ষ লক্ষ মানুষের স্বত:ফুর্ত সমর্থন রয়েছে। তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বন্ধ না হলে সর্বস্তরের মানুষ একযোগে সিলেটের রাজপথে অবস্থান নিয়ে প্রয়োজনে সিলেটকে অচল করে দেবে।

বক্তারা আরও বলেন, সিলেটের উন্নয়নের ধারা বন্ধ করতে মেয়র আরিফকে সাবেক অর্থমন্ত্রী এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। অবিলম্বে চার্জশিট থেকে তাঁর নাম প্রত্যাহার না হলে সিলেটবাসী তীব্র গণআন্দোলন গড়ে তুলবে।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলরদের উদ্যোগে বিকেল ৩টায় নগরভবন থেকে মৌন মিছিল বের করা হয়। এসময় প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে মিছিলটি চৌহাট্টাস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে এক তাৎক্ষনিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মৌন মিছিল ও সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সৈয়দ তৌফিকুল হাদী, ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাজিক মিয়া, ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ, ১০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এডভোকেট সালেহ আহমদ চৌধুরী, ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সিকন্দর আলী, ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম মুনিম, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ছয়ফুল আমিন বাকের,কাউন্সিলর আব্দুল মুহিত জাবেদ, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দেলওয়ার হোসেন সজিব, ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এ বি এম জিল্লুর রহমান উজ্জল, ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুর রকিব তুহিন, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিন, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সোহেল আহমদ রিপন, ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তাকবির ইসলাম পিন্টু, ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো: আব্দুল জলিল নজরুল, সংরক্ষিত ১ আসনের কাউন্সিলর কোহিনুর ইয়াসমিন ঝর্ণা, সংরক্ষিত ৪ আসনের কাউন্সিলর আমেনা বেগম রুমি, সংরক্ষিত ৫ আসনের কাউন্সিলর দিবা রাণী দে, সংরক্ষিত ৮ আসনের কাউন্সিলর সালেহা কবীর শেপী, সংরক্ষিত ৯ আসনের কাউন্সিলর এডভোকেট রোকসানা বেগম শাহনাজ।

এদিকে বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে মিছিল করেন স্থানীয় ওয়ার্ডবাসী। এতে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ছাড়াও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ সর্বস্তরের নাগরিকবৃন্দ অংশ নেন।
১ নম্বর ওয়ার্ড থেকে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ তৌফিকুল হাদীর নেতৃত্বে, ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাজিক মিয়ার নেতৃত্বে, ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদের নেতৃত্বে, ১০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এডভোকেট সালেহ আহমদ চৌধুরীর নেতৃত্বে, ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সিকন্দর আলীর নেতৃত্বে, ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম মুনিমের নেতৃত্বে, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ছয়ফুল আমিন বাকেরের নেতৃত্বে, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুল মুহিত জাবেদের নেতৃত্বে, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দেলওয়ার হোসেন সজিবের নেতৃত্বে, ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এ বি এম জিল্লুর রহমান উজ্জলের নেতৃত্ব, ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুর রকিব তুহিনের নেতৃত্বে, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিনের নেতৃত্বে, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সোহেল আহমদ রিপনের নেতৃত্বে , ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো: আব্দুল জলিল নজরুলের নেতৃত্বে, সংরক্ষিত ৮ আসনের কাউন্সিলর সালেহা কবীর শেপীর নেতৃত্বে পাড়া মহল্লায় মিছিল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়াও সংরক্ষিত ৯ আসনের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র এডভোকেট রোকসানা বেগম শাহনাজের সভাপতিত্বে ও ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তাকবির ইসলাম পিন্টুর পরিচালনায় বিকেলে দক্ষিণ সুরমার বঙ্গবীর রোডে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।               

 
 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের স্থগিত হওয়া নির্বাচন ৩১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। এ দিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে।চেস্বারের প্রশাসক ও সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এজেডএম নুরুল হকের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, উচ্চ আদালতে রিট পিটিশনের ( ৯৮২১/২০১৩) পরিপ্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্ট ১৮ ডিসেম্বর সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পর্ষদের স্থগিত হওয়া নির্বাচনের অনুমতি দিয়েছেন।এরই পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৩১ ডিসেম্বর নির্বাচনের সূচি ঘোষণা করা হয়েছে। এদিন চেম্বারের পরিচালক পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।এরপর সেখান থেকে ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি বিকাল ৪টায় নগরীর জেল রোডস্থ চেম্বার কার্যালয়ে পর্ষদের সভাপতি, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সহ-সভাপতি পদে নির্বাচন হবে। তবে কেউ নির্বাচনের ফলাফলের বিরুদ্ধে ৩ জানুয়ারি বিকেল ৩টা পর্যন্ত আপিল করতে পারবেন। আপিল শুনানি ও নিষ্পত্তি করতে হবে ৫ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ১১টার মধ্যে। এরপর ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হবে।এছাড়া আগামী ২৭ ডিসেম্বর থেকে ভোটার আইডি কার্ড বিতরণ করা হবে। এরই মধ্যে যেসব কার্ড বিতরণ করা হয়েছে সেগুলো বাতিল করা হবে বলে জানানো হয় ওই বিজ্ঞপ্তিতে।

 
 
 

জকিগঞ্জ সংবাদদাতা: ছাত্রশিবিরের জকিগঞ্জ উপজেলার সভাপতি একাধিক মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামি হাসানুল হক বান্নাকে সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটায় সময় পুলিশ জকিগঞ্জের শরীফগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করেছে।
এ সময় ছাত্র শিবিরের কর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা হয়ে বলে স্থানীয়রা জানায়।
জকিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুর রহমান খান জানান বান্নার বিরুদ্বে ১০ টিরও বেশী মামলা রয়েছে।               

 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
পাট অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেছেন, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার প্রয়োজনেই আমাদেরকে পাট ও পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বাড়াতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। তাই সরকার পাটচাষ ও পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বাড়ানোর লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। তবে এসব কর্মসূচিকে সফল করতে হলে সকল পর্যায়ের নাগরিকদের সহযোগিতা অপরিহার্য।

তিনি সোমবার সিলেটে ‘পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন ২০১০’ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন। জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হাসান মাহমুদ। বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. শহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এ জেড নূরুল হক, সিনিয়র এএসপি সুমন মিয়া, সিলেট প্রেসক্লাব সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, চেম্বারের সাবেক পরিচালক মো. লায়েস উদ্দিন ও দিলওয়ার হোসেন, জালালাবাদ রাইস মিল মালিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি হাজী মছদ্দর আলী, সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর আহমদ, ব্যবসায়ী নেতা ও রাজনীতিক মো. আরিফ মিয়া প্রমুখ।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, পরিবেশের বিপর্যয়ের জন্য অন্যান্য কারণের পাশাপাশি পলিথিন ও প্লাস্টিক দ্রব্যের অবাধ ব্যবহারও অনেকাংশে দায়ী। তাই এসব কৃত্রিম পণ্য ব্যবহারের কুফল সম্পর্কে আরো জনসচেতনতা সৃষ্টি করা দরকার। বিশেষ করে চাল, চিনি, সার ও ভূট্টার জন্য পাটের ব্যাগ ব্যবহার সর্বোচ্চ পর্যায়ে নিতে হবে। এজন্য পাইকারী ব্যবসায়ী ও মিল মালিকদের সহায়তা দরকার। অন্যদিকে পাটের ব্যাগ ও অন্যান্য সামগ্রী ব্যবহার সহজতর ও কম দামে সরবরাহের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, চার বছর আগে পাটজাত মোড়ক ব্যবহার সংক্রান্ত আইন প্রণীত হলেও এ সম্পর্কে এতদিন তেমন জোরদার কার্যক্রম চালানো হয়নি। তাই এ সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন করা হচ্ছে। সম্প্রতি দেশব্যাপী অন্যান্য কর্মসূচির পাশাপাশি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।

সারাদেশে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কৃষকদের মধ্যে পাটের চাষও বাড়ছে উল্লেখ করে মহাপরিচালক বলেন, সিলেট বিভাগেও পাটচাষ বৃদ্ধির লক্ষ্যে অধিদপ্তরের দু’টি জেলা পর্যায়ের অফিস স্থাপন করা হবে। প্রয়োজনে আরো দু’টি স্থাপন করা হতে পারে। পাট ও পাটজাত পণ্যের উৎপাদন ও রপ্তানী বাড়িয়ে ২১ হাজার কোটি টাকায় রপ্তানী উন্নীত করা সম্ভবপর। তাই পাটের সুদিন ফিরিয়ে আনার চেষ্টা হচ্ছে সর্বাত্মকভাবে।   
               

 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
ছাত্রদলকর্মী সাজু হত্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দিয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান পাপলু, জেলা ছাত্রদল সভাপতি সাঈদ আহমদ, মহানগর ছাত্রদল সহ-সভাপতি ফখরুল ইসলাম। 
সোমবার মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তারা হাজিরা দেন। আদালত তাদের জামিন বহাল রেখেছেন

এ সময় আদালত চত্বরে উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রদল সাধারন সম্পাদক রাহাত চৌধুরী মুন্না,জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান নেছার, মহানগর ছাত্রদল সহ-সভাপতি এমদাদুল হক স্বপন,তছির আলী,লিটন কুমার দাশ নান্টু, সায়েদ হোসেন সুজন, জি এম আযম, আমিনুল ইসলাম সাজু, , আফজাল হোসেন চৌধুরী, দেওয়ান রেজোয়ান, জাকির আহমদ,আলী আব্বাস, সুমন গাজী, এহতেশামুল হক, সারওয়ার রেজা,মন্টু দেবনাথ, মোঃ লায়েক আহমদ, আরিফুল ইসলাম,নজরুল ইসলাম,তোফায়েল আহমদ,আশরাফ উদ্দিন রুবেল, জাহেদ আহমদ,হাজী দেলোয়ার হোসেন দিনার,জুবের আহমদ,রায়হান আহমদ রাজু, বাশার,দেলোয়ার, সাহান,ওমর ফারুক প্রমুখ।                

 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সিলেটে আরেকটি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়েছে। সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম. রায়হান আহমদ চৌধুরী বাদি হয়ে সোমবার মহানগর হাকিম ৩য় আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। আদালতের বিচারক আনোয়ারুল হক মামলাটি গ্রহণ করে রাষ্ট্রের অনুমতি সাপেক্ষে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে শাহপরাণ থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে রবিবার মহানগর হাকিম ১ম আদালতে মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রাহাত তরফদার তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করেছিলেন।

মামলার বাদি পক্ষের আইনজীবী নিজাম উদ্দিন বলেন- তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত রাষ্ট্রদ্রোহ মামলাটি আদালত গ্রহণ করেছেন। আদালত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য শাহপরাণ থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।   

উল্লেখ্য, গত ১৪ ডিসেম্বর দেশের ৪৪তম বিজয় দিবস উপলক্ষে যুক্তরাজ্যের ইস্ট লন্ডনের দ্য অট্রিয়াম অডিটরিয়ামে যুক্তরাজ্য বিএনপি আয়োজিত এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য তারেক রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশের রাজনীতিতে শেখ মুজিব আওয়ামী লীগের লালসালু। এই লালসালুকে ঘিরে থাকা ভ-রাই নিজেদের স্বার্থে যাকে তাকে রাজাকার আখ্যা দেয়। অথচ মুক্তিযুদ্ধে শেখ মুজিবুর রহমান, তার পরিবার ও আওয়ামী লীগের কোনো ভূমিকা নেই।’

তারেক রহমান বলেন, ‘আওয়ামী লীগ দাবি করে তাদের দল নাকি মুক্তিযুদ্ধের দল, অথচ চোরের দল চাটার দল আখ্যা দিয়ে শেখ মুজিব নিজেই আওয়ামী লীগকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন। এমন একটি কাজ করার জন্য তাহলে তো শেখ মুজিবই বড় রাজাকার।’        

 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
সিলেটের জেলা প্রশাসক মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেছেন, সমাজকে অন্ধকার থেকে আলোর পথে নিতে লেখকরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন। প্রবাসী লেখক নাজিয়া আলী আমাদেরকে আলোর পথ দেখাচ্ছেন। তার লেখার দর্শন আমাদের বুকে লালন করে চলতে পারলেই জীবনকে সুন্দর ও সুখময় করে গড়ে তোলা সম্ভব। বই লেখকে বিশ্বব্যাপী পরিচিত করে তোলে। বাংলাদেশী লেখকদের উচিত তাদের লেখনীর মাধ্যমে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করে তোলা।
তিনি সোমবার সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে এম.এস.বি ফাউন্ডেশন আয়োজিত যুক্তরাজ্য প্রবাসী লেখিকা নাজিয়া আলীর লেখা বই ‘ইনটু দি নাইট ফ্রম দি ডার্কনেস’ (অন্ধকার থেকে আলোর পথে) বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।  এমএসবি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা মনোয়ারা শাহনূর বুলি’র সভাপতিত্বে ও ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহনূর চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন হাফিজ মজুমদার এডুকেশন ট্রাস্টের চেয়ারম্যান বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. কবির এইচ চৌধুরী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন স্কলার্স হোম মেজরটিলা ক্যাম্পাসের অধ্যক্ষ জামাল আহমদ, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানহ আলহাজ্ব ময়নূল ইসলাম, সাপ্তাহিক নকশী বাংলার সম্পাদক সালেহ আহমদ হোসাইন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্কলার্স হোম এর উপাধ্যক্ষ এম এ আজিজ, আমেনা চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্কলার্স হোম শিবগঞ্জ ক্যাম্পাসের অধ্যক্ষ প্রাণবন্ধু বিশ্বাস, উপাধ্যক্ষ আকতারী বেগম, শিক্ষিকা কুদছিয়া আক্তার, উন্মে কুলকুস জেসি, সামিয়া মাহবীন, শিউলী রায় চৌধুরী, তারানা সুলতানা, রোকশানা আলী মনি, মার্জিয়া হোসেন, সাংবাদিক এম এ হান্নান, মোতাহির আলী, ইকবাল চৌধুরী, শাহমত আলী, তোয়াহিদ চৌধুরী, সাহেদ আহমদ শান্ত, গিয়াস আহমদ, পাবেল তালুকদার প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে লেখিকার কন্যা সানিয়া আলী লেখিকার পরিচিতি উপস্থাপন করেন।

 
 
 

নিউজ ডেস্ক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে কটূক্তির অভিযোগে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মানহানির সাতটি মামলা করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবুর রহমানের আদালতে একটি মামলা করা হয়। এ ছাড়া, বরিশালে দুইটি, নড়াইল, বরগুনা, মেহেরপুর, ও পিরোজপুরে একটি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সাতটি মামলার মধ্যে ঢাকা, বরগুনা, নড়াইলে ও পিরোজপুরে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

ঢাকা মহানগর (উত্তর) যুবলীগ নেতা মনির হোসেন মোল্লা বাদী হয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবুর রহমানের আদালতে মামলা করেন। এ মামলায় তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন বরিশাল বিএম কলেজ (বাকসুর) সাধারণ সম্পাদক নাহিদ সেরনিয়াবাদ ও আদালতের আইনজীবী কাইয়ুম খান কায়সার।

মামলার পর বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক নূসরাত জাহান মামলাটি আমলে নিয়ে আগামী বছরের ১১ মার্চ তারেক রহমানকে আদালতে হাজিরের (সমন জারি) নির্দেশ দিয়েছেন

এদিকে, নড়াইলে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তোফায়েল মাহমুদ তুফান সদর আমলী আদালতে তারেকের বিরুদ্ধে এক হাজার কোটি টাকার মানহানি মামলা দায়ের করেন।

এ ছাড়া, বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি যুবায়ের আদনান অনিক বাদী হয়ে জেলা মুখ্য বিচারকি হাকিম নোমান মাইনুদ্দিনের আদালতে তারেকের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেন। মামলাটি আমলে নিয়ে আদালত তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন।
 
একই অভিযোগে মেহরেপুর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি বারিকুল ইসলাম লিজন জেলার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেন।

পিরোজপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আবুল বাসারের আদালতে তারেকের বিরুদ্ধে একটি মানহানির মামলা দায়ের করা হয়। পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আলাউদ্দিন খান মামলাটি দায়ের করেন। শুনানি শেষে তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আদেশ দেন আদালত।
 
উল্লেখ্য, গত ১৪ ডিসেম্বর দেশের ৪৪তম বিজয় দিবস উপলক্ষে যুক্তরাজ্যের ইস্ট লন্ডনের দ্য অট্রিয়াম অডিটরিয়ামে যুক্তরাজ্য বিএনপি আয়োজিত এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য তারেক রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশের রাজনীতিতে শেখ মুজিব আওয়ামী লীগের লালসালু। এই লালসালুকে ঘিরে থাকা ভ-রাই নিজেদের স্বার্থে যাকে তাকে রাজাকার আখ্যা দেয়। অথচ মুক্তিযুদ্ধে শেখ মুজিবুর রহমান, তার পরিবার ও আওয়ামী লীগের কোনো ভূমিকা নেই।’
তারেক রহমান বলেন, ‘আওয়ামী লীগ দাবি করে তাদের দল নাকি মুক্তিযুদ্ধের দল, অথচ চোরের দল চাটার দল আখ্যা দিয়ে শেখ মুজিব নিজেই আওয়ামী লীগকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন। এমন একটি কাজ করার জন্য তাহলে তো শেখ মুজিবই বড় রাজাকার।’

 
           

 
 
 

সিলেট, ২২ ডিসেম্বর:
সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলায় সোমবার হবিগঞ্জ আদালতে আত্মসমর্পনের কথা ছিল। সেজন্য সিলেটের কয়েকজন সিনিয়র আইনজীবীসহ অন্তত দুই শতাধিক  আইনজীবি মেয়র আরিফের পক্ষে অদালতে জামিন চাইবেন এমন প্রস্তুতিও প্রায় চূড়ান্ত ছিল।
কিন্তু সোমবার সকালে হবিগঞ্জের সংশ্লিষ্ট আদালতে তার অত্মসমর্পন সংক্রান্ত কোন আবেদন জমা দেওয়া হয়নি। আদালতের সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। আর কোর্ট সময়ের মধ্যে আবেদন জমা না দেওয়ায় আজ তার আত্মসমর্পন করার সম্ভাবনা নেই।
সূত্রমতে, জামিন না পাওয়ার আশঙ্কায় সকল প্রস্তুতি চূড়ান্ত থাকার পরও তিনি আজ আত্মসমর্পন করেননি। তবে, পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে দুই এক দিনের মধ্যে তিনি আত্মসমর্পন করতে পারেন এমন আভাসও পাওয়া গেছে।

জানা যায়, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলায় রোববার হবিগঞ্জ আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করায় তিনি আত্মসমর্পন করবেন বলে তার ঘনিষ্ট সূত্র গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছিলো ।

উল্লেখ্য, রবিবার সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশিট) গ্রহণ করে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সহ ৩৫ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে আদালত।                              

 
 
 

ঢাকা, ২১ ডিসেম্বর: এবার ছাত্রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করলেন শিক্ষিকা। গত শনিবার রাতে মিরপুর মডেল থানায় মামলাটি (৪৯) দায়ের করেন ওই শিক্ষিকা।

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শিক্ষিকার সাথে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেও বিয়ে না করায় রিয়াজ হোসেন বাবু (২৪) নামে ওই ছাত্রের বিরুদ্ধে মামলা করেন তিনি।

শনিবার পুলিশ পাহারায় ওই শিক্ষিকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়।

মামলার আইও মিরপুর থানার এসআই আসাদ সাংবাদিকদের বলেন, বাদী শ্যামলীর বিআইএসডিটি ফ্যাশন টেকনোলোজির একজন শিক্ষিকা (৩২)।  রিয়াজ হোসেন বাবু একই প্রতিষ্ঠানের মার্চেন্ডাইজিং বিভাগের ছাত্র।

মামলার বরাত দিয়ে তিনি বলেন, গত কয়েক মাস ধরে রিয়াজ তার শিক্ষিকাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে শিক্ষকাকে বিয়ে করবে বলে প্রলোভন দেখায়। এরপর গত ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত ওই শিক্ষিকাকে তার মেসে নিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন। সম্প্রতি শিক্ষিকা বিয়ের জন্য চাপ দিলে রিয়াজ তাতে গড়িমসি করতে থাকে। এক পর্যায়ে রিয়াজ তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়।

আসাদ বলেন, মামলা দায়ের করার পর নিয়ম অনুযায়ী ওই শিক্ষিকাকে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়। এরপর আজ শারীরিক পরীক্ষার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি অভিযুক্ত রিয়াজকে ধরতে তার মেসে অভিযান চালানো হয়েছে। কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, বাদী মামলায় রিয়াজের পূর্ণাঙ্গ ঠিকানা উল্লেখ করতে পারেনি। শুধুমাত্র ওই মেসের ঠিকানা উল্লেখ করা হয়েছে। তারপরও পুলিশ রিয়াজকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলে তিনি জানান।

এর আগে গত ১৩ তারিখ একই থানায় ক্রিকেটার রুবেল হোসেনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করেন চলচ্চিত্র অভিনেত্রী নাজনীন আক্তার হ্যাপী। তিনিও অভিযোগ করেন রুবেল বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার তাকে ধর্ষণ করেছে।           

 
 
 

সিলেট, ২১ ডিসেম্বর:
অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি বলেছেন, সরকার বেতারকে একুশ শতকের উপযুক্ত করে তুলতে চায়। আমাদের মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন বাংলা বেতার একমাত্র মাধ্যম ছিল। দেশের জন্য মুক্তিকামীদের পক্ষে ভূমিকা রাখছে। আমাদের মাঝে নবজাগরণ এসেছে। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সব কিছুতে পরিবর্তন আনতে চান। বেতারের সময় এসেছে উঠে আসার। সে ক্ষেত্রে জাতীয় ঐক্য দরকার। আপনারা এগিয়ে আসুন, মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে হবে। মন্ত্রী উঠে আসা বিভিন্ন দাবীর ব্যাপারে বলেন, প্রধানমন্ত্রী উদার মনের মানুষ। তিনি চিন্তা করছেন শিল্পীদের সম্মানী শীগ্রই বাস্তবায়ন হবে। সিলেট কেন্দ্রের একটি অডিটোরিয়াম বাস্তবায়ন ও আধুনিক যন্ত্রপাতি এবং অনিয়মিত শিল্পীদের অনিয়মিত করার প্রতি তিনি একমত পোষণ করেন।
রোববার সন্ধ্যায় বেতার ভবন প্রাঙ্গণে সিলেট কেন্দ্রের আঞ্চলিক পরিচালক এস এম জাহিদ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মর্তুজা আহমেদ। মর্তুজা আহমেদ বলেন, জাতি গঠনে বেতারের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। সিলেট শিল্প-সাংস্কৃতির ভান্ডার, তার নিজস্ব ঐতিহ্য রয়েছে। হাছন রাজা, রাধারমন, শাহ আব্দুল করিম সহ এখানের গীতিকবি শিল্পীদের গান সমৃদ্ধি করেছে দেশের সংস্কৃতিকে। তথ্য অধিকার নিশ্চিত করতে বেতার ভূমিকা রাখছে।
আওয়ামীলীগের কেন্দ্রিয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সাবেক মহিলা এমপি সৈয়দা জেবুন্নেছা হক, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, জাসদের সিলেট জেলা সভাপতি কলন্দর আলী, বেতার ঢাকা কেন্দ্রের পরিচালক (শিক্ষা) ড. মির শাহ আলম।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপাল ডা. মুরশেদ আহমদ চৌধুরী, আঞ্চলিক প্রকৌশলী আ ফ ম বালিগুর রহমান, উপ-আঞ্চলিক পরিচালক ফখরুল আহমদ, আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তারিক, মোঃ আব্দুল হক, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজিদুর রহমান ফারুক, বিটিভির সিলেট প্রতিনিধি আজিজ আহমদ সেলিম, সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সাবেক প্রশাসক ফারুক মাহমুদ চৌধুরী, সিলেট বার এর সাবেক সভাপতি এডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহিন, সম্মিলীত সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সদস্য ও সিলেট জেলা সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম সেলিম, মহানগর আওয়ামী সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক প্রিন্স সদরুজ্জামান, কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আলম খান মুক্তি, যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুম বিল্লাহ চৌধুরী, উপ-আঞ্চলিক প্রকৌশলী এ এইচ এম ফয়সল, সহকারী পরিচালক মোঃ জাকিরুল ইসলাম, পবিত্র কুমার দাস, প্রদীপ চন্দ্র দাস, প্রশান্ত কুমার মন্ডল, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক সঞ্জয় সরকার।
আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন অসিত বরন দাস গুপ্ত, সৈয়দ সাইমুম আঞ্জুম ইভান, জয়ীতা চক্রবর্তী, রিদি ফারহাদ। অনুষ্ঠানটি এফ এম ১০৫, ৮৮.৮ ও ৯০ মেগাহার্জে সম্প্রচার করা হয়।
   
               

 
 
 
 
 
কবিতা
শিল্প-সাহিত্
মিডিয়া
ইসলাম
Image Missing
 
 
বিনোদন
বিনোদন
বিচিত্রা
বিচিত্রা
মুক্তমঞ্চ
Image Missing
 
 
খেলাধুলা
খেলাধুলা
স্বাস্থ্য
স্বাস্থ্য
তথ্য-প্রযুক্তি
তথ্য-প্রযুক্তি
 
 
সংবাদদাতা
জীবন সদস্য
সম্পাদক
 
দেশ বিদেশ
 
 
 

ঢাকা: অপরাধী যে দলেরই হোক তাদের কঠোর হাতে দমন করতে প্রশাসনের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে রংপুর ও বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার এবং বরগুনা ও লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসকের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী এই নির্দেশনা দেন। সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে বসে এই ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী।

গত মাসে রংপুরে এক আওয়ামী লীগ নেতা খুন হওয়ার ঘটনা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যেভাবেই হোক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন করতে হবে। যারাই সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ ও মাদক চোরাচালানে যুক্ত, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। মানুষ স্বস্তিতে জীবন যাপন করবে এটাই আমরা চাই।”

শেখ হাসিনা বলেন, “অপরাধী কে, কোন দলের তা জানতে চাই না। অপরাধ করলে ধরতে হবে। যে অপরাধী তাকে কঠোর হস্তে দমন করতে হবে। কারো দিকে মুখ চেয়ে না।”

স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নিরপেক্ষভাবে কাজ করারও নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন, “যে অপরাধী সে কোন দলের তা না দেখে তাকে ধরতে হবে। জানিয়ে দেবেন এটা আমার নির্দেশ।”

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে কোনোভাবেই সহ্য করা হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন সরকারপ্রধান।               

 
 
 
 
 
 

রংপুর: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এবার মুখ খুললেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান বদিউজ্জামান। তিনি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ‘তালবাহানার’ অভিযোগ এনেছেন।
এর আগে দুদকের কমিশনার মো. সাহাবুদ্দিন চুপ্পুও খালেদা জিয়ার কড়া সমালোচনা করেছিলেন।
সোমবার রংপুর আরডিআরএস মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে  দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘বার বার বলা হচ্ছে মামলাগুলো মিথ্যা। তাহলে আমি বলবো, মামলাগুলো আপনারা মিথ্যা প্রমাণ করে মুক্ত হয়ে যান। আমি চাই সেটাই। কিন্তু আপনারাই তো তা হতে দিচ্ছেন না। বার বার করে কোনো না কোনো অজুহাত তুলছেন। একবার বলছেন, বিচারকের প্রতি আস্থা নাই, আরেকবার বলছেন, বিচারকের নিয়োগ ঠিক হয়নি। এভাবে নানারকম তালবাহানা করা হচ্ছে।’
খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুদকের দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচার চলছে বকশী বাজারে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ আদালতে।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়, আইন সবার জন্য সমান। খালেদা জিয়া দোষী, কি দোষী নন আমি সেই রায় দেওয়ার কেউ নই। আমি শুধু তার মামলার তদন্ত করে অভিযোগ রিপোর্ট দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘এজন্য বিচারকও পরিবর্তন করা হয়েছে। এখন আপনি যদি বলেন, অভিযোগ মিথ্যা। তাহলে আপনি বড় বড় উকিল দিয়ে অভিযোগ খণ্ডন করতে পারেন। আদালতে যুক্তি খণ্ডন করে বড় বড় মামলা থেকে অনেকেই মুক্ত হচ্ছে। আপনিও মুক্ত হয়ে যান।’

খালেদা জিয়ার উদ্দেশে দুদক চেয়ারম্যান আরো বলেন, \'আপনি যদি বিচারে দোষী সাব্যস্ত  হোন, তাহলে আপনাকে সাজা ভোগ করতে হবে। আর আপনি যদি নির্দোষ প্রমাণিত হোন, তবে আপনি মুক্ত হবেন।’

 

‘দুর্নীতি প্রতিরোধে নারীদের ভুমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দুদক চেয়ারম্যান বদিউজ্জামান। এতে সভাপতিত্ব করেন জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোজাম্মেল হক।


এর আগে গত ৯ ডিসেম্বর এক অনুষ্ঠানে দুদক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেন, ‘আপনি (খালেদা জিয়া) ব্যঙ্গ করে দুদককে দুর্নীতি কমিশন, দায়মুক্তি কমিশন বলছেন। কিন্তু দুদক কাউকে দায়মুক্তি দেয় না।’


তিনি আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর খুনি মোশতাককে দায়মুক্তি দেয়ার ঘটনা দেশের প্রথম ও একমাত্র দায়মুক্তির ঘোষণা।’


এ ধরনের কথা বলার আগে বিএনপির চেয়ারপারসনকে আয়নায় নিজের চেহারা দেখার পরামর্শ দেন চুপ্পু।


তিনি বলেন, ‘আপনার (খালেদা জিয়া) শাসনামলে বাংলাদেশ চারবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।’

এর পরদিন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানান এবং বলেন, চুপ্পু ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন।               

 
 
 
 
 
 

নিউজডেস্ক:
নিত্যদিনের বিভিন্ন খাবারে ধনেপাতা ব্যবহার করে থাকেন খাবারের গন্ধ এবং স্বাদে একটা পরিবর্তন আনার জন্য। ধনেপাতার বৈজ্ঞানিক নাম হল কোরিয়ানড্রাম স্যাটিভাম। কিন্তু কখনও কি কল্পনা করেছেন যে এই সুস্বাদু খাবারটির কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকতে পারে? অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি কথা হল, এই সুপরিচিত সবুজ সবজিটির অনেক ঔষধি গুণাগুণের পাশাপাশি অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও বিদ্যমান। যা নিয়মিত খেলে আমাদের শরীর দিনদিন অসুস্থ হয়ে যেতে পারে।

লিভারের ক্ষতিসাধন
অতিরিক্ত ধনেপাতা খেলে এটি লিভারের কার্যক্ষমতাকে খারাপভাবে প্রভাবিত করে থাকে। এতে থাকা এক ধরনের উদ্ভিজ তেল শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে আক্রান্ত করে ফেলে। এছাড়া এটাতে এক ধরনের শক্তিশালী অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে যেটা সাধারণত লিভারের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে কিন্তু দেহের মাঝে এর অতিরিক্ত মাত্রার উপস্থিতি লিভারের ক্ষতিসাধন করে।
নিম্ন রক্তচাপ
অতিরিক্ত ধনেপাতা খাওয়ার ফলে দেহের হৃৎপিন্ডের স্বাস্থ্য নষ্ট করে ফেলে, যার ফলে নিম্ন রক্তচাপ সৃষ্টি করে। বিশেষজ্ঞরা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এই ধনেপাতা খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। তাই এটি অতিরিক্ত খাওয়ার ফলে নিম্ন রক্তচাপের উদ্ভব ঘটতে পারে। এছাড়া এটি হালকা মাথাব্যথারও উদ্রেক করতে পারে।
পেট খারাপ
স্বাভাবিকভাবে ধনেপাতা গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল বিষয়ক সমস্যা দূর করে থাকে কিন্তু বেশি পরিমাণে ধনেপাতা সেবন পাকস্থলীতে হজমক্রিয়ায় সমস্যা তৈরি করে থাকে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে এক সপ্তাহে ২০০ এমএল ধনেপাতা আহারে গ্যাসের ব্যথা ওঠা, পেটে ব্যথা, পেট ফুলে ওঠা, বমি হওয়া হওয়ারও সম্ভাবনা দেখা যায়।
ডায়রিয়া
ধনেপাতা অল্প খেলে পেটের সমস্যা দূর হয় কিন্তু এটি বেশি পরিমাণে খেলে ডায়রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। এছাড়া এর ফলে ডিহাইড্রেশন হতে থাকে। ফলে ডায়রিয়ার সমস্যাটি হতেই থাকে। তাই এই ধরনের সমস্যা এড়াতে প্রতিদিনের খাবারে ধনেপাতা কম পরিমাণে ব্যবহার করুন।
নিঃশ্বাসের সমস্যা
আপনি যদি শ্বাসকষ্টের রোগী হয়ে থাকেন তাহলে এই ধনেপাতা আহার থেকে বিরত থাকুন। কেননা এটি আপনার শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা করে থাকে যার ফলে ফুসফুসে অ্যাজমার সমস্যা হতে পারে। এই ধনেপাতা খেলে মাঝে মাঝে ছোট ছোট নিশ্বাস নিতেও সমস্যা তৈরি হয়।
বুকে ব্যথা
অতিরিক্ত ধনেপাতা আহারে বুকে ব্যথার মত জটিল সমস্যাও দেখা দিতে পারে। এটা শুধুমাত্র অস্বস্তিকর ব্যথাই সৃষ্টি করে না তা দীর্ঘস্থায়ীও হয়ে থাকে। এজন্য এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে দৈনন্দিন আহারে কম করে এই ধনেপাতা খেতে পারেন।
ত্বকের সংবেদনশীলতা
সবুজ ধনেপাতাতে মোটামুটিভাবে কিছু ঔষধি অ্যাসিডিক উপাদান থাকে যেটি ত্বককে সূর্যরশ্মি থেকে বাঁচিয়ে সংবেদনশীল করে থাকে। কিন্তু অতিরিক্ত সেবনে সূর্যের রশ্মি একেবারেই ত্বকের ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না ফলে ত্বক ভিটামিন কে থেকে বঞ্চিত হয়। এছাড়া ধনেপাতা ত্বকের ক্যান্সার প্রবণতাও তৈরি করে থাকে।
অ্যালার্জীর সমস্যা
ধনেপাতার প্রোটিন উপাদানটি শরীরে আইজিই নামক অ্যান্টিবডি তৈরি করে যা শরীরের বিভিন্ন রাসায়নিক উপাদানকে সমানভাবে বহন করে থাকে। কিন্তু এর অতিরিক্ত মাত্রা উপাদানগুলোর ভারসাম্য নষ্ট করে ফেলে। ফলে অ্যালার্জীর তৈরি হয়। এই অ্যালার্জীর ফলে দেহে চুলকানি, ফুলে যাওয়া, জ্বালাপোড়া করা, র্যা শ ওঠা এই ধরনের নানা সমস্যা হয়ে থাকে।
প্রদাহ
অতিরিক্ত ধনেপাতা সেবনের আরেকটি বিশেষ পার্শ্ব প্রতক্রিয়া হল মুখে প্রদাহ হওয়া। এই ঔষধিটির বিভিন্ন এসিডিক উপাদান যেটি আমাদের ত্বককে সংবেদনশীল করে থাকে পাশাপাশি এটি মুখে প্রদাহেরও সৃষ্টি করে। বিশেষ করে এর ফলে ঠোঁট, মাড়ি এবং গলা ব্যথা হয়ে থাকে। এর ফলে সারা মুখ লাল হয়েও যায়।
ভ্রূণের ক্ষতি
গর্ভকালীন সময়ে অতিরিক্ত ধনেপাতা খাওয়া ভ্রূণের বা বাচ্চার শরীরের জন্য বেশ ক্ষতিকারক। ধনেপাতাতে থাকা কিছু উপাদান মহিলাদের প্রজনন গ্রন্থির কার্যক্ষমতাকে নষ্ট করে ফেলে যার ফলে মহিলাদের বাচ্চা ধারণ ক্ষমতা লোপ পায় এবং বাচ্চা ধারণ করলেও গর্ভকালীন ভ্রূণের মারাত্মক ক্ষতি করে থাকে।
           

 
 
 
 
 
 

নিউজ ডেস্ক : সুন্দরবনে তেল ট্যাংকারডুবির ঘটনাকে পরিকল্পিত বলে দাবি করেছে বিএনপির তদন্ত কমিটি। সোমবার সুন্দরবন পরিদর্শনকালে প্রেস ব্রিফিংয়ে সাত সদস্যের বিএনপির তদন্ত কমিটির প্রধান মেজর হাফিজ উদ্দীন বলেন, সুন্দরবনে ট্যাংকারডুবির ঘটনা ছিল পরিকল্পিত।
তিনি বলেন, বাগেরহাট রামপালে কয়লাভিত্তিক যে বিদ্যুৎকেন্দ্র করা হচ্ছে, সেটি ভারতে করার কথা ছিল। কিন্তু ভারতের পরিবেশ অধিদপ্তর ছাড়পত্র না দেয়ায় তারা সেটি করেনি।

মেজর হাফিজ বলেন, রামপালে যদি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করা হয়- তবে তা সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্যের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলবে। এ কারণে দেশের সচেতন মানুষ আন্দোলন গড়ে তুলেছে। সেই মুহূর্তে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের পক্ষে অবস্থানকারীরা পরিকল্পিতভাবে ট্যাংকারডুবির এ ঘটনা ঘটিয়েছি। তিনি বলেন, ট্যাংকারডুবিতে সুন্দরবনের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে, ভবিষ্যতে আরও ক্ষতি হবে।

বিএনপির গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্য খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুজ্জামান, খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু, পরিবেশবিদ ড. ফরিদুল ইসলাম, বাগেরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুস সালাম, খুলনা জেলা বিএনপির সভাপতি শফিকুল ইসলাম মনা ও পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামের নেতা কামরুল ইসলাম এ সময় উপস্থিত রয়েছেন।               

 
 
 
 
 
 

নিউজ ডেস্ক: মামলার কারণে পাবনার আটঘরিয়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা মাওলানা জহুরুল ইসলাম খানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।
রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. সবুর হোসেন স্বাক্ষরিত এক ফ্যাক্স বার্তায় সোমবার দুপুরে পাবনা জেলা প্রশাসককে বিষয়টি অবহিত করা হয়।

আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আলিমুন রাজীব উপজেলা চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্তের খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
তিনি বলেন, ‘আজ (সোমবার) দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের একটি ফ্যাক্সবার্তা পেয়েছি।’
প্রজ্ঞাপনা বলা হয়েছে, আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জহুরুল ইসলাম খানের বিরুদ্ধে আটঘরিয়া থানায় মামলা নং ৬, তারিখ-২১/০২/২০১৪, ধারা-আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুত বিচার) আইন-২০০২ এর ৪/৫ আদালত কর্তৃক অভিযোগপত্র গৃহিত হয়।
এ পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮, উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন ২০১১ ধারা সংশোধিত এর ধারা ১৩ (খ) (৯) অনুসারে আটঘরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জহুরুল ইসলাম খানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা জামায়াতের নায়েবে আমির জহুরুল ইসলাম সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি স্বীকার করেন।               

 
 
 
 
 
 

ঢাকা: পবিত্র হজ ও রাসুল (সা.) সম্পর্কে কটুক্তিকারী লতিফ সিদ্দিকীর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে ২৩-২৪ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে রংপুর অভিমুখে রোডমার্চ করবে চরমোনাই পীরের সংগঠন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮ টায় ৩০০ মাইক্রোবাস নিয়ে রংপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেবে রোডমার্চের গাড়িবহর। পথে আরো ২শ মাইক্রোবাস যোগ হবে।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর পুরানাপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ইসলামী আন্দোলনের আমীর মুফতী সৈয়দ রেজাউল করীম একথা জানান ।

চরমোনাই পীর বলেন, ‘লতিফ সিদ্দিকী একজন স্ব-ঘোষিত নাস্তিক, ধর্মদ্রোহী। ধর্মদ্রোহীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান পাশ করে লতিফকে ফাঁসিতে ঝুলাতে হবে। ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে সরকার যদি এ দাবি না মানে তাহলে বুঝব এ সরকার মুসলমানদের সরকার নয়, তারা নাস্তিকদের সরকার।’

ইসলামী আন্দোলনের কর্মসূচি অনুযায়ী মঙ্গলবার সকাল ৮টায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকে রোডমার্চের গাড়িবহর রংপুরের উদ্দেশে রওয়ান দেবে। পথিমধ্যে বেলা ১টায় টঙ্গী স্টেশন রোডে পথসভা, গাজীপুর চৌরাস্তায় বেলা ২টায়, মৌচাক বাসস্ট্যান্ডে বেলা ৩টায় এবং এলেঙ্গায় বিকেল ৪টায়, সিরাজগঞ্জে কড্ডার মোড়ে বিকেল ৫টায় পথসভা অনুষ্ঠিত হবে। রাতে বগুড়ার আলতাফুন্নেছা খেলার মাঠে ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। রাতে বগুড়ায় রাত্রিযাপন শেষে পরদিন বুধবার রংপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেবে রোডমার্চের গাড়িবহর। ২৪ ডিসেম্বর সকাল ৯টায় বগুড়া আলতাফুন্নেসা মাঠে জনসভা, গোবিন্দগঞ্জে ১০টায় পথসভা, পীরগঞ্জ বেলা ১১টায় ও মিঠাপুকুরে বেলা ১২টায় পথসভা শেষে বেলা ২টায় রংপুরে সমাপনী জনসভা অনুষ্ঠিত হবে।
সংবাদ সম্মেলনে ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমাদ, চরমোনাইয়ের পীরের রাজনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, ঢাকা মহানগর সভাপতি এটিএম হেমায়েত উদ্দিন, কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ইমতিয়াজ আলম, প্রচার সম্পাদক আহমদ আব্দুল কাইয়ুম, সহকারী প্রচার সম্পাদক আতিকুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।               

 
 
 
 
 
 

ঢাকা: রেজিস্ট্রেশন ছাড়া কেউ ১৪৩৬ হিজরী সনের (২০১৫ খ্রিস্টাব্দ) হজ পালনের জন্য সৌদি আরবে যেতে পারবেন না বলে আবারো জানিয়ে দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। হজযাত্রীরা প্রাথমিক রেজিস্ট্রেশনে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) ছাড়াই নাম নিবন্ধন করতে পারবেন। মন্ত্রণালয়ের হজ শাখা থেকে প্রকাশিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘২০১৫ খ্রিস্টাব্দ বা ১৪৩৬ হিজরী সনে হজে গমনেচ্ছুকদের সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ৫১ হাজার ৬৯০ টাকা অথবা বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ৪৮ হাজার ৩৩১ দশমিক ৫০ টাকা নির্দিষ্ট ব্যাংকে জমা দিয়ে আগামী ৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। প্যাকেজ মূল্যের অবশিষ্ট টাকা ১০ জুনের মধ্যে জমা দিতে হবে। রেজিস্ট্রেশন ব্যতিত কেউই হজ পালনের জন্য সৌদি আরবে যেতে পারবেন না।’

এদিকে গত ১৪ ডিসেম্বর সচিবালয়ে চূড়ান্ত হজ প্যাকেজ ঘোষণা ও নিবন্ধন কার্যাক্রমের উদ্বোধন শেষে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব চৌধুরী বাবুল হাসান জানান, এমআরপি বাধ্যতামূলক থাকলেও প্রাথমিক রেজিস্ট্রেশনের সময় কারো এমআরপি না থাকলে ওই ঘরে প্রক্রিয়াধীন অপশন নির্বাচন করতে হবে। তবে সৌদি আরবে চূড়ান্তভাবে নাম পাঠানোর সময় অবশ্যই এমআরপি লাগবে।

এমআরপি তৈরির জন্য পাসপোর্ট অফিসে পৃথক বুথ রয়েছে, জানিয়ে ধর্মসচিব বলেন, ‘আরো সহজে এমআরপি করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হবে। আর জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলে জন্মসনদ দিয়ে একটি ঘরের তথ্য পূরণ করা যাবে।’

এর আগে গত ৮ ডিসেম্বর হজ প্যাকেজের খসড়া অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় উত্থাপন করে ধর্ম মন্ত্রণালয়। প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় ২০১৫ সালের খসড়া হজ প্যাকেজ অনুমাদন দেওয়া হয়।

সভাশেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশারফ হেসেন ভূইয়া জানান, ‘এ বছর সরকারি-বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় মোট এক লাখ এক হাজার ৭৫৮ জন হজ করার সুযোগ পাবেন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে পারবেন ৯১ হাজার ৭৫৮ জন।’

সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্যাকেজ-১ এ খাবার খরচসহ তিন লাখ ৫৪ হাজার ৭৪৫ টাকা এবং প্যাকেজ-২ এ খরচ পড়বে দুই লাখ ৯৬ হাজার ২০৬ টাকা। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনাতেও ন্যূনতম খরচ পড়বে দুই লাখ ৯৬ হাজার ২০৬ টাকা।

সরকারি-বেসরকারি ব্যবস্থাপনার এই অঙ্কের বাইরে কোরবানির জন্য আরো সাড়ে ১০ হাজার টাকা লাগবে বলে তিনি জানান।

এ ছাড়া ব্যক্তিগত খরচের জন্য একজন সর্বোচ্চ এক হাজার ডলার সঙ্গে নিতে পারবেন। আগামী বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ৯ জিলহজ) পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে।

 

               

 
 
 
 
 
 

ঢাকা : শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৩৬টি স্বর্ণের বারসহ এক যাত্রীকে আটক করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। আটককৃত স্বর্ণের বাজার মূল্য প্রায় দুই কোটি ২০ লাখ টাকা।
রোববার সকাল ১১ টার দিকে আনিস মিয়া (২৩) নামে এক যাত্রীকে অভ্যন্তরীণ টার্মিনাল থেকে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সদস্যরা আটক করে। এসময় তার শরীর তল্লাশি করে স্বর্ণের ৩৬টি বার উদ্ধার করা হয়েছে। শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সহকারী কমিশনার উম্মে নাহিদা শীর্ষ নিউজকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, দুবাই থেকে চট্টগ্রাম হয়ে শাহজালাল বিমানবন্দরে বিজি ০৪৮ বিমানে করে আনিস মিয়া ঢাকায় আসেন। তিনি অভ্যন্তরীণ টার্মিনাল থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় গোয়েন্দাদের সন্দেহ হয়। এরপর তাকে তল্লাশি করা হলে তার জুতার এবং অন্তর্বাস থেকে ৩৬টি বার উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত স্বর্ণের ওজন চার কেজি ১৯৮ গ্রাম। এর বাজার মূল্য প্রায় দুই কোটি ২০ লাখ টাকা।
           

 
 
 
 
 
 
ঢাকা: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে সাবেক জাতীয় পার্টি সরকারের প্রতিমন্ত্রী হবিগঞ্জের সৈয়দ মুহম্মদ কায়সারের বিরুদ্ধে করা মামলার রায় মঙ্গলবার ঘোষণা করা হবে। বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ সোমবার রায় ঘোষণা এ দিন ধার্য করেন। একাত্তরে হত্যা, গণহত্যা, নির্যাতনসহ ১৬টি অভিযোগে দায়ের করা মামলায় উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে গত ২০ আগস্ট রায় অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখেন ট্রাইব্যুনাল। ১৬টি ঘটনায় ট্রাইব্যুনাল আইনে কায়সারের বিরুদ্ধে চলতি বছর ২ ফেব্রুয়ারি অভিযোগ (চার্জ) গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। এর পর ৪ মার্চ থেকে রাষ্ট্রপক্ষের সূচনা বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। কায়সারের বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগ বিষয়ে প্রসিকিউশন আইনি যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে। গত ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ছয় কার্যদিবস প্রসিকিউশন এবং ৭ আগস্ট থেকে ১৯ আগস্ট পর্যন্ত আসামিপক্ষ সাত কার্যদিবস যুক্তি উপস্থাপন করে। গত ৯ মার্চ থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত কায়সারের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা মনোয়ারা বেগমসহ ৩২ জন সাক্ষী। অন্যদিকে আসামিপক্ষ কোনো সাফাই সাক্ষী হাজির করতে পারেনি। গত বছর ১৫ মে কায়সারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল। ২১ মে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আসামিপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৪ আগস্ট বিশেষ বিবেচনায় কায়সারকে শর্ত সাপেক্ষে জামিন দেন ট্রাইব্যুনাল-২। অভিযোগ গঠনের শুনানিতে তিনি মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেন। সৈয়দ কায়সারের বাবা সৈয়দ সাঈদউদ্দিন ১৯৬২ সালে সিলেট-৭ আসন থেকে কনভেনশন মুসলিম লীগ থেকে এমএনএ নির্বাচিত হন। আর সৈয়দ কায়সার ১৯৭০ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন। প্রসিকিউশনের অভিযোগে বলা হয়, একাত্তর সালে দখলদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় ৫০০ থেকে ৭০০ \'স্বাধীনতাবিরোধীকে\' নিয়ে \'কায়সার বাহিনী\' গঠন করেন এই মুসলিম লীগ নেতা। তিনি নিজে ছিলেন ওই বাহিনীর প্রধান। এ বাহিনীর নিজস্ব ইউনিফর্ম ছিল। সৈয়দ কায়সারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে পথ দেখিয়ে বিভিন্ন গ্রামে নিয়ে স্বাধীনতার পক্ষের লোক এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর দমন অভিযান চালাতেন। পরে স্বাধীনতার ঠিক আগে তিনি আত্মগোপন করেন। পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হওয়ার পর ১৯৭৮ সালে আবারও রাজনীতিতে সক্রিয় হন কায়সার। ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১৭ আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সাংসদ নির্বাচিত হন। পরে জিয়াউর রহমানের সময়ে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন এবং হবিগঞ্জ বিএনপির সভাপতি হন। এরশাদের আমলে তিনি জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। ১৯৮৮ সালে হবিগঞ্জ-৪ আসন থেকে লাঙ্গল প্রতীকে নির্বাচন করে সংসদ সদস্য হন।
 
 
 
 
 
 
নিউজ ডেস্ক: গণজাগরণের চার বছর পর তিউনিসিয়ায় প্রথমবারের মতো গণতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে নিদা তিউনিস পার্টির প্রার্থী বেজি সাইদ এসেবসিকে প্রাথমিকভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। দ্বিতীয় দফার ভোট শেষে তিনি ৫৫ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। অবশ্য তার প্রতিদ্বন্দী মোনসেফ মারজুকি এই ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছেন। নির্বাচনের এ ফলাফল আনুষ্ঠানিকভাবে দেওয়া হয়নি। ফলাফল আজ সোমবার ঘোষণা দেওয়ার কথা। এদিকে দ্বিতীয় পর্যায়ের এ ভোটে জয়ী হওয়ার ঘোষণার পর বেজি সাইদ এসেবসির সমর্থকরা আনন্দ-উৎসবে মেতে উঠেছে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম দফা ভোটেও ৩৯ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হন এসেবসি। তিউনিসিয়া ১৯৫৬ সালে ফ্রান্সের কাছ থেকে স্বাধীন হওয়ার পর দেশটির জনগণ এই প্রথম অবাধ নির্বাচনের মাধ্যমে একজন রাষ্ট্রপ্রধান বাছাই করলেন। চার বছর আগে তিউনিসিয়ায় গণবিক্ষোভের মাধ্যমে স্বৈরশাসনের অবসান ঘটে। আরব বসন্ত নামে পরিচিত আলোড়ন তোলা আন্দোলন কর্মসূচির সূচনা হয়েছিল এদেশে। ৮৮ বছর বয়সী এসেবসি তিউনিসিয়ার ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট বেন আলী এবং দেশটির স্বাধীনতা-পরবর্তী প্রথম নেতা হাবিব বুরগুবিয়ার অধীনে কাজ করেছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী মোনসেফ মারজুকি একজন মানবাধিকারকর্মী।
 
 
 
 
যোগাযোগ করুন..
01712 247 900

dainiksylhet@gmail.com